অমানবিকতা-ছোট ভাই (১০) কে অজানার উদ্দেশ্যে ট্রেনে তুলে দিলেন আপন ভাই ও ভাবি…!

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রির্পোটারঃ
এ কেমন অমানবিকতা-নওগাঁয় মাত্র ১০ বছর বয়সী আপন ছোট ভাইকে ট্রেনে তুলে দিয়ে অজানার উদ্দেশ্যে পাঠালেন ভাই ও ভাবি। আপন ভাই ও ভাবি কর্তৃক পাঠানো সেই শিশুটিকে রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলায় পেয়ে স্থানিয়রা শিশুটিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার হেফাজতে দিয়েছেন।
বাবা ও মায়ের মৃত্যুর পর শিশু রফিকুল (১০) তার বড় ভাই রাজমিস্ত্রি শরিফুল এর হেফাজতে ছিলেন। এরিমাঝে ছোট ভাইয়ের ভরণপোষণের দায়িত্ব না নিতে ছোট ভাইকে অজানার উদ্দেশ্যে পাঠানোর সিদ্ধান্ত মোতাবেক শিশুটির আপন ভাই ও ভাবি শিশুকে বলে যে ‘আমরা তোকে আর রাখব না, তোর মন যেখানে যেতে চায় চলে যাবি’ এই বলে শিশুটিকে ট্রেনে তুলে দেন তার ভাই ও ভাবি।
শিশু রফিকুল ইসলাম নওগাঁ জেলার রানীনগর উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের মৃত বাদেশ মন্ডলের ছেলে।
২৩ শে জানুয়ারী শনিবার রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার বহরপুর রেলওয়ে স্টেশনে রাতে শিশুটি ঘোরাফেরা করাকালে স্থানিয়রা শিশুটিকে উদ্ধার করে তার কাছে ঘটনা শুনার পর ২৪ শে জানুয়ারি রবিবার দুপুরে স্থানীয় সোনার বাংলা সমাজ কল্যাণ ও ক্রীড়া সংসদের আহ্বায়ক এসএম হেলাল খন্দকার শিশুটিকে বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে নিয়ে যান।এসময় শিশু রফিকুল জানান, তার বয়স ১০ বছর এবং সে দ্বিতীয় শ্রেণিতে লেখাপড়া করতো প্রায় এক বছর আগে তার বাবা-মা মারা গেলে সে তার একমাত্র আপন বড় ভাই রাজমিস্ত্রি শফিকুলের কাছে (রানীনগর) উপজেলা সদরে একটি ভাড়া বাসায় থাকতো।এরিমাঝেই হঠাৎ গত শনিবার তার ভাই-ভাবি তাকে আর  বাড়িতে রাখতে পারবে না বলে রাজশাহী থেকে ছেড়ে আসা টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেস ট্রেনে তুলে দেন বলে শিশুটি জানায়।
এ ব্যাপারে স্থানীয় সোনার বাংলা সমাজ কল্যাণ ও ক্রীড়া সংসদের আহ্বায়ক এস এম হেলাল খন্দকার বলেন, স্টেশনের পাশেই আমার বাড়ি। শনিবার দিনগত রাত সাড়ে ৮টার দিকে টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেস ট্রেন চলে যাবার পর স্টেশনে এলোমেলোভাবে ঘুরতে দেখে শিশু রফিকুলকে বাড়িতে নিয়ে যান তিনি এবং বিস্তারিত জানার চেষ্টা করেন। পরবর্তীতে রাতেই বিষয়টি থানা পুলিশ সহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবহিত করেন তিনি।এরপর রবিবার দুপুরে শিশু রফিকুলকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে নিয়ে যান তিনি।
এ ব্যাপারে বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আম্বিয়া সুলতানা বলেন, উপজেলার বহরপুর রেল স্টেশনে এক সমাজকর্মী গতরাতে একটি শিশুকে পেয়েছেন। শিশুটির দেয়া তথ্যানুসারে নওগাঁ জেলাধীন সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে এবং শিশু রফিকুলকে তার পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে বলেও জানিয়েছেন বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।
ঘটনার ব্যাপারে জানতে রবিবার সন্ধার পর প্রতিবেদক মুঠোফোনে নওগাঁর রানীনগর থানার ওসি শাহিন আকন্দ সাথে যোগাযোগ করলে ওসি প্রতিবেদককে জানান, ঘটনাটি কেউ জানায় নি,আপনার মাধ্যমেই প্রথম জানলাম।
এসময় ওসি আরো বলেন, যতদ্রুত সম্ভব শিশুটির ব্যাপারে বা তার পরিবারের ব্যাপারে খোঁজ-খবর নিয়ে শিশুটিকে পরিবারে ফিরে আনার উদ্যোগ নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *