আগামী ২৮ জানুয়ারির মধ্যে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার

অনলাইন ডেস্কঃ

আগামী ২৮ জানুয়ারির মধ্যে গত বছরের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। আর সেই লক্ষ্যে “বিশেষ পরিস্থিতিতে পরীক্ষা ছাড়াই” ফল প্রকাশ করতে আইন সংশোধনের প্রস্তাবে সোমবার (১১ জানুয়ারি) সম্মতি দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সোমবার মন্ত্রিসভার ভার্চুয়াল বৈঠকে “ইন্টারমিডিয়েট অ্যান্ড সেকেন্ডারি এডুকেশন অর্ডিনেন্স ১৯৬১ (সংশোধন) অধ্যাদেশ ২০২০”, “বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড আইন, ২০১৮” ও “বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড আইন, ২০২০” এর খসড়ার নীতিগত ও চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম পরে এক ব্রিফিংয়ে জানান, অধ্যাদেশ জারি করে আগামী বুধ থেকে শনিবারের মধ্যে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা যায় কিনা, সেই প্রস্তাব তোলা হয়েছিল মন্ত্রিসভায়।

তিনি বলেন, “আইনে বিধান আছে, পরীক্ষা নিয়ে রেজাল্ট দিতে হবে। যেহেতু এবার পরীক্ষা নেওয়া যায়নি, তাই ৭-১০ দিনের মধ্যে রেজাল্ট দিতে অধ্যাদেশ জারির প্রস্তাব করেছিল মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ। আর মাত্র ছয়দিন পর সংসদ বসবে, তাই মন্ত্রিসভা সিদ্ধান্ত দিয়েছে, অধ্যাদেশ নয়, সংশোধিত আইন আকারেই পাস করা হবে, যাতে ২৮ জানুয়ারির মধ্যে রেজাল্ট দেওয়া যায়।”

১১টি শিক্ষা বোর্ডের ১৩ লাখ ৬৫ হাজার ৭৮৯ জন শিক্ষার্থীর এবার ১ এপ্রিল থেকে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা দেওয়ার কথা ছিল। তবে করোনাভাইসের প্রকোপ বাড়তে শুরু করলে ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হয়।

গত ৭ অক্টোবর এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি জানান, অষ্টম শ্রেণীর সমাপনী ও এসএসসি’র ফলাফলের গড় করে এবারের এইচএসসি’র ফল নির্ধারণ করা হবে। জেএসসি-জেডিসির ফলাফলকে ২৫ ও এসএসসির ফলকে ৭৫% বিবেচনায় নিয়ে উচ্চ মাধ্যমিকের ফল ঘোষণা করা হবে।

পরে ডিসেম্বরের শেষে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেন, যেহেতু পরীক্ষা নেওয়া যায়নি, সেহেতু আইন সংশোধন করে অধ্যাদেশ জারির মাধ্যমে নতুন বছরের শুরুতে এইচএসসি’র ফল প্রকাশ করা যায় কিনা, সেই চেষ্টা করা হচ্ছে।

সময় নিউজ২৪.কম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *