আদিব রাইয়ান (আদি)র কবিতা আবার নৌকাডুবি

আবার  নৌকাডুবি

আবার  নৌকাডুবি
আদিব রাইয়ান (আদি)
০১.
সুদূর পথ চলিছি বাহিয়া,
চপলায় নৌ দোল খায় হেলিয়া ভুলিয়া।
নদপাড় দুধার কাশবনে একাকার,
নেউল শৃগালের হুটোপুটিতে কলমি লতার প্রণয়াষাঢ়।
মৌ পতঙ্গ ফুলতে সঙ্গ সখ্য শালিকে,
বস্ত্রহীন রুক্ষকোমল দেহ চিকচিক করে ঢালের বালিতে।
ঢালু দুধার গিন্নী ব্যস্ততার,
কাখে কলশ উপচে নিতম্ব দোলে ঘরে পৌছবার।
মাল্লারা খুলিছে আলখাল্লারা ভ্যাপসা উষ্ণতায়,
দাড় ফেরি করি মরিছি বাহু শ্রান্ত পথপারাবার।
বর বয়স্য রৌশনারা থামিছে সেই এবার,
নবপ্রণয়িনী উত্তাল কামিনী চোঁখ মুদে হারাবার।
নূতন জামাতা কল্পপ্রথা বইয়া লইয়া ঘাড়ে,
প্রজাপতি রঙ লাগিছে যেবা সান্ধ্যপ্রহরে।
সহসা আকাশে প্রলয় বাতাসে উঠিল উত্তাল ণৃত্যে,
বিবর্ণ সন্ধ্যে ভীত শোকগন্ধে মাতাল নদ ছুটে ঘূর্ণবৃত্তে।
আহা মরি ছরি
ঘুরাও তটে তরী,
বায়ূবয় বায়ূময় গগণ হাহাকার করে ফেরি।
উত্তাল নদ তুলে ঢেউ পদ
আছড়ায়ে জলকণা,
শিহরিত মাঝি
কুণ্ঠিত বর বয়স্য বধূ তবু আনমনা।
০২.
শান্তু নদ হিম হাওয়া কুড়োয় বিহ্বলে,
 ধবল জ্যোছনায় বিম্ব ছায়া গড়ায় টোলপড়া জলে।
চৌচির জলাশয় পূর্ণিমার জোয়ারে,
 মোটে দুটো চোঁখ খোজে ফেরে কারে,
পিলপিলে লাল কাকড়ারা চলে এলেবেলে দলে,
লেপ্টে ভেঁজানো পদাবলি ফুটে কার কাদা ভেজা জলে?
চঞ্চল আঁখি এপাশ ওপাশ ফেরে শিরশিরে শিশির পাতায়,
রক্তজবার মতো লালিমা মাখা চোঁখ মূর্ছে পড়ে ডানা ঝাপটানো পাখায়।
সহসা অদুরে জলবাসপুরে গূঢ় আশা আলগা হইয়া আসে,
ক্ষীণ সুরোলেখা লাল শাড়ি আঁকা কেশরাজ হাসিয়া ভাসে।
০৩.
ধরনী চিরদিনের মতো নিরব হইয়াছে,
ফুল ঝড়িয়াছে..
শিশিরেরা অভিমানে কণ্ঠ রুদ্ধ করিয়া গুল্ম ঘাস লতাতে আড়ি করিয়া লইয়াছে।
নির্জন বালুতট চাঁদের কণায় নিজকে উন্মুক্ত করিয়া সকল অশ্রু বিসর্জন দিয়া মুখ ফিরাইয়া লইয়াছে।
সংস্রবহীনা বালিকা ঘুমাইয়াছে,
পাশেই বধূবর বারকয়েক চিবুক ধরিয়া ঘুম ভাঙাইতেছে।
সময়নিউজ২৪.কম/ এ এস আর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *