আমি বেঁচে থাকতে দুই উপজেলার ব্যাবসায়ীদের অন্যায়ভাবে নিয়ন্ত্রন বা তদারকী করতে দেয়া হবে না-রামপাল সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক

মাসুদ রানা, মোংলা
খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন, এক শ্রেনীর মানুষ দক্ষিনা ল তথা মোংলা-রামপালে কাকঁড়া ও মৎস্য ব্যাবসায়ীদের জিম্মি করে রেখেছেন। এ সেক্টরে পরিবহন ক্ষাতকে জিম্মি করে ব্যাবসায়ীদের চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করছে।

সুন্দরবন কাকঁড়া ব্যাবসায়ীদের খুলনা থেকে নিয়ন্ত্রীত হতো, যারা এসব পন্য ঢাকায় পাঠাতেন তাদের খুলনা থেকে একটি সিন্ডিগেট চক্র নিয়ন্ত্রন করতো এবং ঢাকার সাথে ব্যাবসায়ীদের যোগসুত্র তৈরী করে রাখতো। কিন্ত একানকার মাঠ পর্যায় সাধারন ব্যাসায়ীরা সরাসরী কাকড়া ও মাছ সরবারাহ করলে ওই সকল সিন্ডিগেট চক্রটি তাদের উপর অন্যায়ভাবে জুলুম ও অত্যাচার করতো।

এ অ লের অসহায় মানুষের জীবন জিবীকার কথা চিন্তা করে এ সিন্ডিগেট চক্রের সাথে বহুবার কথা বলাসহ এটি আমি ওই মাঠ পর্যায়ের ব্যাবসায়ীদের সার্থে খুলনার সিন্ডিগেট চক্রটি ভেঙ্গে দিয়েছি। আমি বেচে থাকতে মোংলা-রামপালের গরীব ও অসহায় লোকদের কেউ ক্ষতি করবে তা আমি সহ্য করবোনা এবং আমি যতদিন বেঁচে আছি এ দুই উপজেলায় অন্যায়ভাবে ব্যাবসায়ীকে বা এ অ লের মানুষদের নিয়ন্ত্রন বা তদরকী করবে, তা কাউকে করতে দেয়া হবেনা।

বুধবার দুপুরে রামপালে এক সংবার্ধনা অনুষ্ঠানে খুলনা সিটি মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক একথা বলেন। রামপালের ভাগা বাজার এলাকায় বৃহত্তম সুন্দরবন কাকড়া ও মৎস্য পরিবহন সমিতির সদস্যদের উদ্যোগে সমিতির প্রধান কার্যালয়ে এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

ব্যাবসায়ী সুত্রে জানা যায়, দক্ষিনা ল তথা মোংলা-রামপাল, মোড়েলগঞ্জ, শরনখোলা, সাতক্ষিরা ও খুলনাসহ দেশের দক্ষিন-পশ্চিমা লের ভিবিন্ন কাকঁড়া ও মৎস্য ঘের ও খামারে ভাইরাস আক্রমণ করে খামারীদের সর্বশান্ত করেছে। তবে কাকঁড়া উৎপাদন খরচ কম থাকায় দেশের উপকুলীয় অ লে দিন দিন কাঁকড়ার চাষ ও খামার বৃদ্ধি পাচ্ছে।

বিশেষ করে চিংড়িতে ভাইরাস, রপ্তানি হ্রাস এবং দাম কমে যাওয়াতে মোংলা-রামপাল, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরার চিংড়ি চাষীরা কাঁকড়া চাষে ঝুঁকছেন। বর্তমানে এ পন্যটি উপকুল অ লে চাষ হওয়া এসব কাঁকড়া আমেরিকা ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি হচ্ছে। অন্যদিকে বিদেশীদের খাবারের মেনুতে যেসব খাদ্য এখন স্থান পাচ্ছে তার মধ্যে অন্যতম বাংলাদেশ থেকে যাওয়া সুন্দরবনের সুস্বাদু শিলা প্রজাতির কাঁকড়া।

খামারি ও কৃষকদের নিকট থেকে কাঁকড়া পাইকারী কিনে রাজধানী ঢাকার মিরপুর ও আব্দুল্লাহপুর কাঁকড়ার আড়তে ট্রাক যোগে সরবরাহ করা হয়ে থাকে। সেখান থেকে মুলত বড় বড় ব্যবসায়ীরা বিমানযোগে এসব জীবিত ও রোগমুক্ত কাঁকড়া বিদেশে রপ্তানি করে থাকেন।

এর আগে নানা রকম প্রতিবন্ধকতার মধ্যে ব্যবসায়ীরা ঢাকায় কাঁকড়া পরিবহন করতো,এখন মুটামুটি সেসব প্রতিকুলতা কাটিয়ে উঠেছেন ব্যবসায়ীরা। এখন জিম্মি হয়ে পরছে প্রসাশন ও সিন্ডিগেট চক্রের হাতে। তাই এসকল দুষ্ট চক্রের হাত থেকে রেহাই পেতে খুলনা সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক’র সহযোগীতা ও সুদৃস্টি কামনা করছে অ লের ব্যাবসায়ীরা।

সমিতির সভাপতি অজয় কুমার বিশ্বাস এর সভাপতত্বে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাবেক ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক মোতাহার হোসেন প্রিন্স, বাগেরহাট জেলা আওয়ামীলীগের অন্যতম সহ-সভাপতি ও রামপালের সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যপক আব্দুর রউফ, জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও আইনজিবী বারের সভাপতি একে আজাদ টিপু, বাগেরহাট প্রেস ক্লাবের সভাপতি আহাদ হায়দার,মোংলা উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহের হাওলাদার, রামপাল উপজেলা চেয়ারম্যান শেখ মোয়াজ্জেম হোসেন, রামপাল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তুষার কুমার পাল, মোংলা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ ইকবল হোসেন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কামরুন নাহার হাই, মোংলা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মোঃ মোঃ ইব্রাহিম হোসেন, রামপাল উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব শেখ জামিল হাসান জামু,সোনাইলতলা ইউপি চেয়ারম্যান নাজিনা বেগম নার্জিনা,বুড়িরডাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান বাবু নিখিল চন্দ্র, পৌর যুবলীগের সভাপতি কামরুজ্জামান জসিম,সুন্দরবন কাকড়া পরিবহন সমিতির সহ-সভাপতি আরিফ বিল্লাহ, সাধারন সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনি, সহ-সাধারন সম্পাদক বাবলু ঘোষ,সদস্য জাহিদুল ইসলাম ডাবলু, উপদেষ্টা বিজন তরফদার, দিপংকার মজুমদার বাচ্চু, সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বাগেরহাট,মোংলা, দ্বিগরাজ, ভাগা, চালনা ও খুলনার বিশিষ্ট ব্যবসায়ীরাসহ দুই উপজেলার নেতৃবৃন্দ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

সময়নিউজ২৪.কম/বি এম এম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *