ইবিতে ছাত্রলীগের দু’পক্ষের ব্যাপক সংঘর্ষ; আহত ২০

ইবি প্রতিনিধি: 

 

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) শাখা ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে  উভয় গ্রুপের অন্তত ২০ জন আহত হয়।

মঙ্গলবার (২১ জানুয়ারী) বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ ও সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিবের ক্যাম্পাসে আসার চেষ্টা করলে বিদ্রোহী গ্রুপ তা প্রতিহত করতে গেলে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
প্রথম দফায় সকাল সাড়ে ১১টায় সংঘর্ষে ২জন আহত হয়। পরে দুপুর ২টায় আরেকদফায় ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় ৩-৪টি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটে।

বিদ্রোহী গ্রুপের হামলায় গুরুতর আহত অবস্থায় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিবসহ কয়েকজনকে কুষ্টিয়া সদর হাসপাতাল ও ইবি মেডিকেলে ভর্তি করা হয়েছে বলে।এবিষয়ে শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ বলেন, আমরা বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে তাঁর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু করতে চাচ্ছিলাম। এজন্য তারাও এক হয়েছিল কিন্তু সেখানে তারা অতর্কিত হামলা চালিয়ে আমাদের কর্মীর মাথা ফাটিয়ে দেয়। আর তার প্রতিবাদে আমরা মিছিল দিলে সেই মিছিলে পুনরায় হামলা চালিয়ে আমাদের সাধারন সম্পাদক সহ বেশ কয়েকজনের মাথা ফাটিয়ে দেয় এবং অনেকেই আহত হয়। তাই তদন্ত সাপেক্ষে আমি এর সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি।

ইবি থানার ওসি বলেন, সকাল হতে একটা টান টান উত্তেজনা বিরাজ করছে। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের পলাশ-রাকিব গ্রুপ দীর্ঘদিন ধরে ক্যাম্পাসে অবাঞ্ছিত। লোকজন নিয়ে তারা আজ ক্যাম্পাসে আসার জন্য চেষ্টা করেছিল । পদবঞ্চিত গ্রুপ লালন-আরাফাতরা তাদের ক্যাম্পাসে ঢুকতে না দেয়ার জন্য প্রতিরোধ গড়ে তোলে। এসময় দু’পক্ষের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয় এবং ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ঘটনা ঘটে। মনে হয় দুই-তিন জন আহত হয়েছে। এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক। তিনটা ককটেল বিস্ফোরণের শব্দ আমি পেয়েছি, তবে অস্ত্রের ব্যবহারের কোনো খবর আমি পাইনি।

এবিষয়ে দায়িত্বরত সহকারী প্রক্টর আনিসুর রহমান বলেন, মূলত ছাত্রলীগের সভাপতি এবং সম্পাদক তাদের অনুসারীদের নিয়ে ক্যাম্পাসে আসতে চেষ্টা করে। এসময় বিদ্রোহীদের ধাওয়ায় ছাত্রলীগের সম্পাদক আহত হয়। আমরা প্রক্টরিয়াল বডি এবং পুলিশের সহযোগিতায় তাদের উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে পাঠিয়ে দিয়েছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস এখন শান্ত রয়েছে।

সময় নিউজ২৪.কম/এমএম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *