ইসলামপুরে ব্যস্ত প্রতিমা শিল্পীরা চলছে তুলির আঁচর

লিয়াকত হোসাইন লায়ন, জামালপুর প্রতিনিধিঃ

জামালপুরের ইসলামপুরে সনাতন ধর্মের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয়া দূর্গাপূজা সামনে রেখে ব্যস্ত সময় পার করছে প্রতিমা শিল্পীরা। এবারেও প্রতিমাকে অপরুপ,সুন্দর করে তুলতে ব্যস্ত তারা। উপজেলার ২০ টি পুজা মন্ডপে শারদীয় দূর্গা উৎসব অনুষ্ঠিত হবে। মহালয়ের মধ্যে দিয়ে শুরু হবে শারদীয় দুর্গাৎসবের আনুষ্ঠানিকতা।

পুজা মন্ডম ও মন্দিরে চলছে প্রতিমা তৈরির শেষ পর্যায়ের কাজ। প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত প্রতিমা শিল্পিদের এখন দম ফেলারও সময় নেই্। মাস দুয়েক আগ হতেই প্রতিমা তৈরির কাজ শুরু করেন প্রতিমা শিল্পীরা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে,হরিসভা পুজা মন্ডপে,নাওয়া খাওয়া ভ’লে কারিগররা প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে। নিপুন আচড়ে তৈরি হচ্ছে প্রতিমা। নিজের সন্তানের মতো অতি ভালবাসায় মাটি দিয়ে তৈরি করছেন দূর্গা লক্ষী,স্বরস্বতী,কার্তিক,গণেশ,অসুর মহিষ,সিংহের মৃন্ময় ও শিবের মূর্তি। প্রতিবারের তুলনায় এবারেও বিভিন্ন জায়গায় দেখা যায় নতুনত্ব। এবারে প্রতিমা তৈরিতে রয়েছে বৈচিত্রের ছোয়া।

লক্ষন মালাকার বলেন, বাশঁ ও খড় দিয়ে প্রতিমার অবকাঠামো তৈরির পর এখন চলছে রঙ তুলির কাজ। কঠোর পরিশ্রম করেও সঠিক পারিশ্রমিক না পাওয়ায় সারাটি বছর কষ্টে জীবন ধারন করতে হয়। বাপ দাদার পেশা ধরে অন্যকোন না জানায় আমাদের সংসার চালাতে অনেক কাঠ খড় পুড়তে হয়। এবার ৫টি প্রতিমা তৈরি কাজ হাতে নিয়েছেন। কারিগর নিয়ে নিজে খেটে পুষায় না।

লিটন মালাকার বলেন, প্রতিমা তৈরিতে তেমন রোজগার না থাকায় আমাদের বাপ,দাদার এ পেশা ছেড়ে অনেকেই অন্য পেশা যেতে বাধ্য হয়েছে।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানাগেছে,এ উপজেলায় গোবিন্দবাড়ী পুজা মন্ডপ,পুদ্দারবাড়ী পুজা মন্ডপ,সেনবাড়ী পুজা মন্ডপ,হরিসভা পুজা মন্ডপ,কাসারী পাড়া পুজা মন্ডপ,কামার পাড়া পুজা মন্ডপ,ইংলিশ পট্টি পুজা মন্ডপ সহ পৌর শহর ও উপজেলায় ২০টি পুজা মন্ডপে দূর্গোৎসব উৎযাপিত হতে যাচ্ছে। আগামী ২১ সেপ্টেম্বর বেল পুজার মধ্যে দিয়ে শারদীয়া দুর্গে্ৎাসব পালন শুরু হবে।

বাংলাদেশ পুজা উদযাপন পরিষদ উপজেলা শাখার সভাপতি অমূল্য রতন পাল জানান, ইতিমধ্যে প্রতিটি মন্ডপের কাজ প্রায় সমাপ্ত। চলছে রং তুলির কাজ। নিরাপত্তার জন্য পুজা মন্ডপে প্রশাসনের সাথে মত বিনিময় হয়েছে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনী থাকবে। তবে উৎযাপন পরিষদ যথেষ্ঠ তৎপর রয়েছে।

ইসলামপুর সার্কেলের এসএসপি সুমন মিয়া জানান,দূর্গাপুজা উপলক্ষে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। প্রতিমা তৈরিতে পুলিশের টহল চলছে। পুজা শুরু হলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দায়িত্ব পালন করবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা এসএম মাজহারুল ইসলাম জানান,শান্তিপূর্নভাবে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের প্রধান উৎসব আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করার লক্ষে সজাগ দৃষ্টি রয়েছে। যথাযথ নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করতে সকল প্রস্তুতি হাতে নিয়েছে উপজেলা প্রশাসন।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এড জামাল আব্দুন নাছের বাবুল জানান, পুজা উৎযাপনে ইতি মধ্যে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির মিটিং হয়েছে। প্রত্যেক পুজা মন্ডপে সেচ্ছা সেবক ও গ্রাম পুলিশ নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। আশা রাখি কোন রকম জামেলা ছাড়াই উল্লাস,উদ্দীপনার মধ্যে দিয়েই এবারের শারদীয় দূর্গাৎসব সমাপ্ত হবে।

সময় নিউজ২৪.কম/এমএম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *