এতদিন যে উন্নয়নের কথা বক্তৃতায় বলে এসেছি সেই উন্নয়ন এখন শুরু হয়েছে-উপাচার্য প্রফেসর ড. এমরান কবির চৌধুরী

মোঃ মাসুম মিয়া, কুবি প্রতিনিধি:

 অর্ধ কোটি টাকা বাজেটে সৌন্দর্যবর্ধনের কাজ চলছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি)।পাশাপাশি দুই কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হচ্ছে ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরীণ রাস্তা। এমন সব প্রকল্পে দ্রুতগতিতে ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরীণ চিত্র পাল্টে যাচ্ছে।বিশ্ববিদ্যালয়টিতে সৌন্দর্য্য বর্ধনের জন্য এমন আলাদা বৃহৎ প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে এই প্রথম।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ক্যাম্পাসে প্রধান ফটক থেকে শুরু করে শহীদ মিনার সর্বত্রই সাজসরঞ্জাম নিয়ে কর্মতৎপর সময় কাটাচ্ছেন সংশ্লিষ্ট কর্মীরা। 

সৌন্দর্য বর্ধন কমিটির আহ্বায়ক সহকারী অধ্যাপক মুহাম্মদ সোহরাব উদ্দীন জানান, “এই প্রকল্পের অধীনে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আলোকসজ্জা, ক্যাম্পাসজুড়ে বিভিন্ন গাছের নিচে ও খোলা জায়গায় বসার জন্য পাকা স্থাপনা, কেন্দ্রীয় খেলার মাঠ ও শহীদ মিনার সংলগ্ন বাগানে পানি দেয়ার সুবিধার্থে পানির পাম্প স্থাপন, প্রশাসনিক ভবনের সামনে নতুন বাগান, গোলচত্ত্বর,মুক্তমঞ্চসহ বেশ কিছু দৃষ্টিনন্দন স্থাপনা রয়েছে। একই সময়ে অভ্যন্তরীন রাস্তা প্রশস্তকরণ ও নতুন রাস্তা তৈরীর কার্যক্রম এগিয়ে চলেছে। এছাড়াও শীঘ্রই নান্দনিক মূল ফটক নির্মান কাজ শুরু হবে।”

এদিকে প্রকল্পের কাজ দৃশ্যমান হওয়ায় শিক্ষার্থী ও সংস্কৃতিকর্মীসহ বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সদস্যরা সাধুবাদ জানিয়েছেন। তবে শিক্ষার্থীরা চান প্রকল্প যেন ক্যাম্পাসের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যকে অক্ষুণ্ণ রেখে সম্পন্ন করা হয়। 

ম্যানেজম্যান্ট স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষাথী    মোঃআল আমিন বলেন, “বিশ্ববিদ্যালয়ে এই সৌন্দর্য্যবর্ধন প্রকল্পে আমরা খুব খুশি। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের আসল আকর্ষণ হচ্ছে এই প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য। আশা করছি তা অক্ষুণ্ন রেখেই কাজ করা হবে। “

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের ব্যাপারে মুহাম্মদ মেহেদি হাসান বলেন -“রাস্তা প্রশস্ত করতে গিয়ে নিরুপায় হয়ে এক-দুইটি গাছ কাটতে হয়েছে। তবে যথাসম্ভব প্রাকৃতিক পরিবেশ নষ্ট না করে প্রকল্পের কাজ এগিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছি।”

প্রকল্পের ব্যায় প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রফেসর ড. আবু তাহের জানান, “প্রকল্পটিতে সৌন্দর্যবর্ধনে ব্যয় ধরা হয়েছে ৫৩ লাখ টাকা এবং রাস্তা নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে দুই কোটি টাকা। প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের চিত্র পালটে যাবে।” 

অন্যদিকে প্রকল্প নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. এমরান কবির চৌধুরী বলেন, “এতদিন যে উন্নয়নের কথা বক্তৃতায় বলে এসেছি সেই উন্নয়ন এখন শুরু হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ে দৃশ্যমান উন্নয়ন শুরু হয়েছে। সবাইকে একসাথে নিয়েই বিশ্ববিদ্যালয়কে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হবে।”
সময়নিউজ২৪.কম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *