কিশোরগঞ্জ-নিকলী সড়কে ঝুঁকিপূর্ণ দুইটি বেইলি ব্রিজ ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন

Jetpackkquote>রাজিবুল হক সিদ্দিকী, কিশোরগঞ্জ:

বেইলি সেতু অসংখ্য গর্তে জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে। এতে ঝুঁকি নিয়ে যান চলাচল করায় ভোগান্তির শিকার হচ্ছে এলাকাবাসী। সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ৩০ বছর আগে কিশোরগঞ্জ-নিকলী সড়কটি চালু করা হয়। এ সময় সড়কের ধুলদিয়া এলাকায় একটি অস্থায়ী বেইলি সেতু নির্মাণ করে সওজ কর্তৃপক্ষ। এতে জেলার সঙ্গে নিকলী ও কটিয়াদী উপজেলার সরাসরি সড়ক যোগাযোগ স্থাপিত হয়। তারও পাঁচ বছর পর ওই স্থানে আগের সেতুটি ভেঙে আরও একটি বেইলি সেতু নির্মাণ করা হয়।

কিন্তু ২৫ বছরেও বেইলি সেতুর জায়গায় পাকা সেতু নির্মাণ হয়নি। ফলে বেইলি সেতুর বিভিন্ন স্থানে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। তা জরাজীর্ণ হয়ে পড়ায় প্রায়ই যান আটকে চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে সওজ কর্তৃপক্ষ জোড়াতালি মেরামত করে তা চালু রাখছে।

সরেজমিন দেখা গেছে, ধুলদিয়ায় নরসুন্দা নদীর ওপর নির্মিত বেইলি সেতু দিয়ে জেলা শহর, কটিয়াদীর উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও হাওরবেষ্টিত নিকলী উপজেলায় প্রতিদিন হাজারো মানুষ যাতায়াত করে। এতে ট্রাক-ট্রাক্টরসহ অটোরিকশা, ইজিবাইকসহ বিভিন্ন ধরণের যান চলাচল করে। কিন্তু বেইলি সেতুর স্টিলের পাটাতন ভেঙে যাওয়ায় বিভিন্ন যানবাহন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে।

এলাকাবাসী জানায়, ছোট-বড় বিভিন্ন যানবাবহন চলতে গিয়ে প্রতি বছর বেইলি সেতুর পাটাতন ভেঙে চলাচলের অনুপযোগী হলে জোড়াতালি দিয়ে তা চালু রাখছে সওজ কর্তৃপক্ষ।

কিশোরগঞ্জ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির আহ্বায়ক লেনিন রায়হান শুভ্র শাহীন জানান, জেলার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সড়ক কিশোরগঞ্জ-নিকলী। বৃহত্তর হাওরাঞ্চল, জেলা সদরসহ কটিয়াদী ও নিকলী সব কয়েকটি ইউনিয়নের যানবাহন এই সড়ক দিয়ে যাতায়াত করে।

বেইলি সেতুর অবস্থা ভালো না থাকায় সাময়িকভাবে বাস সার্ভিস বন্ধ রয়েছে। দীর্ঘ ২৫ বছরেও বেইলি সেতুটি স্থায়ী সেতু না হওয়ায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বিভিন্ন যানবাহন চলাচল করছে। এতে যে কোনো সময় বড় ধরনের দূর্ঘটনা ঘটতে পারে। অন্যদিকে একই সড়কের কটিয়াদি ও নিকলী উপজেলার সীমান্তবর্তী পোড্ডা-মামুদপুর সেতুটিও ঝুঁকিপূর্ণ।

গত দেড় বছর আগে মূল সেতুটি হটাৎ ভেঙ্গে গেলে অস্থায়ী ভিত্তিতে এই বেইলি সেতু নির্মাণ করে যানবাহন চলাচল সচল রাখে সড়ক বিভাগ কিন্তু দেড় বছর অতিক্রম করলেও নতুন করে কোন স্থায়ী কোন সেতু নির্মিত না হওয়ায় ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে যানবাহন। কোন বড় যানবাহন এই সেতু দিয়ে চলাচল করতে না পারায় সার পরিবহনসহ কৃষি যন্ত্রপাতি পরিবহনে ব্যাপক সমস্যা হচ্ছে কৃষি নির্ভর এই এলাকার মানুষের।

এই পথে চলাচলকারী সিএনজি চালক ‘আবু নাইম’ বলেন, প্রতিদিন ঝুঁকি নিয়ে এই দুইটি বেইলি সেতু দিয়ে গাড়ি চালাতে হয়। আমরা গাড়ি চালকরা অতি দ্রুত নতুন সেতু চাই।

সময় নিউজ২৪.কম/এএসআর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *