ঝুম বৃষ্টি; বৃষ্টির দিনে কী খাবেন দেখে নিন

ঝুম বৃষ্টির দেখা মিললো অবশেষে। প্রখর রোদে প্রাণ হাঁসফাঁস করা বন্ধ হয়েছে ঠিকই কিন্তু বৃষ্টির কারণে একটু আধটু সমস্যায়ও ভুগতে হচ্ছে।

বর্ষা মৌসুমে আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। পরিণতিতে একটু বৃষ্টির পানি লাগলেই হাঁচি, কাশি শুরু হয়ে যায়। তাই খাবার তালিকার দিকে রাখতে হবে বিশেষ নজর। চা: ঝুম বৃষ্টির দিনে ভাপ ওঠা এক কাপ চা বা কফি সঙ্গে গল্পের বই কিংবা পুরোনো দিনের কিছু বাংলা গান—নিশ্চয়ই মন্দ লাগবে না। অনেকে চায়ের সঙ্গে শিঙাড়াও খেতে পছন্দ করেন। পেঁয়াজ-কাঁচা মরিচ আর সরষের তেল দিয়ে মাখানো মুড়িও বেশ জমে। গ্রিন টি বা আদা চা শরীরকে রাখবে চনমনে। চায়ে রয়েছে অনেক বেশি অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। ফেসবুক, মোবাইল অফ করে প্রিয়জনের সঙ্গে বসে বৃষ্টি দেখতে দেখতে এক কাপ চা বা কফির কাপে চুমুক দেওয়ার সময়টা অসাধারণ।


বর্ষাকাল মানেই যখন-তখন বৃষ্টি। ঘরে বসে অনেকেই ঝুম বৃষ্টি বেশ উপভোগ করেন। সঙ্গে গরম-গরম উপাদেয় কিছু খাবার থাকলে তো কথাই নেই। ভালো লাগায় যোগ হয় ভিন্ন স্বাদ। দেখা যাক, কী কী খাওয়া যায়:

খিচুড়ি

খিচুড়ি: মেঘ-বৃষ্টির দিনগুলো খিচুড়ি ছাড়া কি চলে? সঙ্গে বেগুন ভাজা, নানা রকম ভর্তাও করে নিতে পারেন। বর্ষার এ সময়ে বৃষ্টির সঙ্গে খিচুড়িটা জমে ভালো। চালে-ডালে নরম খিচুড়ি বা সবজি দিয়ে নিরামিষ খিচুড়ি রান্না করে খেতে পারেন। বাড়িতে যদি ইলিশ থাকে তবে তো ইলিশ-খিচুড়ি। তবে বৃষ্টির দিনে এক প্লেট গরম খিচুড়ির সঙ্গে ডিম ভাজিও কিন্তু মন্দ নয়।
চা
চা: ঝুম বৃষ্টির দিনে ভাপ ওঠা এক কাপ চা বা কফি সঙ্গে গল্পের বই কিংবা পুরোনো দিনের কিছু বাংলা গান—নিশ্চয়ই মন্দ লাগবে না। অনেকে চায়ের সঙ্গে শিঙাড়াও খেতে পছন্দ করেন। পেঁয়াজ-কাঁচা মরিচ আর সরষের তেল দিয়ে মাখানো মুড়িও বেশ জমে। গ্রিন টি বা আদা চা শরীরকে রাখবে চনমনে। চায়ে রয়েছে অনেক বেশি অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। ফেসবুক, মোবাইল অফ করে প্রিয়জনের সঙ্গে বসে বৃষ্টি দেখতে দেখতে এক কাপ চা বা কফির কাপে চুমুক দেওয়ার সময়টা অসাধারণ।

নুডলসনুডলস: রিমঝিম বৃষ্টিতে আবহাওয়া কিছুটা ঠান্ডা হয়ে আসে। এমন আবহাওয়ায় স্বাদে কিছুটা ভিন্নতা চান কেউ কেউ। স্বাদের ভিন্নতা আনতে বৃষ্টির দিনে ঝটপট রান্না করে ফেলতে পারেন নুডলস। তবে বৃষ্টির দিনে ঝোল করা নুডলস বেশি ভালো লাগতে পারে। নুডলসের সঙ্গে ডিম, পেঁয়াজ, টমেটো আর ধনেপাতা মেশালে স্বাদ যেমন বাড়ে, তেমনি গন্ধটাও হয় জিবে জল আনার মতো। আর নুডলস ঝটপট করা যায়। এই আবহাওয়ায় তা পেটের জন্যও ভালো।

পপকর্ন: বৃষ্টির দিনে পপকর্ন হতে পারে সময় কাটানোর জন্য হালকা নাশতা। চায়ের সঙ্গে নাশতা হিসেবে পপকর্ন খেতে পারেন। সিনেমা দেখতে বসে বা পার্কে সময় কাটাতে গিয়ে পপকর্ন খেতে পছন্দ করেন অনেকেই। তরুণ প্রজন্মের কাছে এই খাবার বেশ জনপ্রিয়। ভুট্টা থেকে তৈরি হয় পপকর্ন। আর এই শস্যে আঁশ বা ফাইবারের পরিমাণ বেশি। পাশাপাশি আছে নানা ধরনের ভিটামিন ও খনিজ উপাদান।

বাদাম, কাঠবাদাম এবং খেজুরে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। বৃষ্টিতে ভিজলে হলুদ মেশানো দুধ খুবই কার্যকর।

ডিম ও ডালে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ প্রোটিন। প্রোটিন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। ঠান্ডার সমস্যা থেকে শরীরকে বাঁচাতে পারে প্রোটিন।

চেরি, জাম, পেস্তা, পিচ ফল এবং তালে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এসব ফল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

সময়নিউজ২৪.কম/ এ এস আর

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *