থলের বিড়াল প্রিয়া সাহার গোপন পরিচয়

অনলাইন ডেস্ক:

কে এই প্রিয়া সাহা? হুট করে কোথা থেকে চর্চার কেন্দ্রবিন্দুতে চলে এলেন তিনি? ক্ষমতাধর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায় নিয়ে অভিযোগকারী এই নারীর একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। তার বক্তব্য নিয়ে ইতিমধ্যে তুমুল বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কাছে মিথ্যা অভিযোগকারী সেই প্রিয়া সাহা ওরফে প্রিয় বালা বিশ্বাস পিরোজপুরের মেয়ে। বাবার বাড়ি নাজিরপুর উপজেলার চরবানিয়ারী গ্রামে, আর শ্বশুরবাড়ি যশোরে। তার বাবার নাম মৃত নগেন্দ্র নাথ বিশ্বাস। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ছাত্রী প্রিয়া থাকতেন রোকেয়া হলে। ছাত্রজীবন থেকেই তিনি ছাত্র ইউনিয়নের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

তিনি বাংলাদেশ মহিলা ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। বিভ্রান্তিমূলক কর্মকাণ্ডের জন্য গত বছর তাকে মহিলা ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়। বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির আট সাংগঠনিক সম্পাদকের একজন। এই ঐক্য পরিষদের সভাপতি হিউবার্ট গোমেজ এবং সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রানা দাস গুপ্ত। গোপন সূত্র মতে, তিনি ভারতের একটি গোপন সংগঠনের এজেন্ট। মুসলিমদের সাথে হিন্দুদের সাথে হাঙ্গামা বাঁধানো তার দায়িত্ব।

এছাড়া ‘শারি’ নামে বাংলাদেশের দলিত সম্প্রদায় নিয়ে একটি এনজিওর পরিচালক প্রিয়া সাহা। সেইসঙ্গে তিনি ‘দলিত কণ্ঠ’ নামে একটি পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন। ওই পত্রিকায় প্রিয়া সাহার পুরো নাম দেওয়া হয়েছে ‘প্রিয় বালা বিশ্বাস’। সেখানে বয়স দেখানো হয়েছে ৫৪ বছর।

প্রিয়ার স্বামী মলয় কুমার সাহা দুদকের সদর দপ্তরে উপপরিচালক পদে কর্মরত রয়েছেন। তার দুই মেয়ে প্রজ্ঞা পারমিতা সাহা ও ঐশ্বর্য লক্ষ্মী সাহা যুক্তরাষ্ট্রে পড়াশোনা করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *