নওগাঁয় অপরিকল্পিতভাবে ভূমি ব্যবহারে কমছে কৃষি জমি

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠনঃ
নওগাঁ জেলাজুড়ে অপরিকল্পিত ভাবে ভূমি ব্যবহার করার কারনে আশংখ্যাজনকভাবে কমছে কৃষি জমি, দিনদিন পরিবেশ হারাচ্ছে তার ভারসাম্যতা। নওগাঁ জেলার সবচেয়ে বড় মূলবান সম্পদ হলো ভূমি সম্পদ। এই ভূমি থেকে আমরা খাদ্য, বস্ত্র, বৃক্ষ, বাসস্থান, রাস্তা-ঘাট, স্কুল-কলেজ, শিল্প, খনি ও অন্যান্য অবকাঠামো নির্মান সহ জীবন রক্ষাকারী ঔষধের উপাদান সমূহ পেয়ে থাকি। মূল্যবান এই ভূ-সম্পদ আজ মারাত্মক ভাবে অবক্ষয়ের সম্মুখীন হয়ে পরছে বললেই চলে। নওগাঁয বাড়ছে মানুষ, একই সাথে বৃদ্ধি পাচ্ছে তাদের জীবন জীবিকার চাহিদাও। চাহিদা ও প্রয়োজন মেটাতে গিয়ে মানুষ ভূমির অপরিকল্পিত ও অপরিমিত ব্যবহার করার ফলেই আশংখ্যাজনকভাবে কৃষি জমি কমছে। ফলশ্রতিতে ভূমির অপব্যবহার আজ জেলার সর্বত্র দৃশ্যমান হয়ে পড়েছে।
নওগাঁর বদলগাছী উপজেলা ভূমি অফিসের একটি সুত্রে জানায় ১৯৬৬ সাল থেকে ৭০ সাল পর্যন্ত ভূমি জরিপ (রেকর্ড) যা ৭২ সালে চূড়ান্ত আর.এস খতিয়ান মতে বদলগাছী উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে মোট জমির পরিমান ৫১ হাজার ৮শ ৪০ একর। মোট কৃষি জমির পরিমান ৪৯ হাজার ২শ ১৮ একর। বাড়ী, ঘর, দোকান পাট, চাতাল, ইট-ভাটা, স্কুল-কলেজ, রাস্তা-ঘাট, অফিস-আদালত, বিল, ডোবা, নদী, বাঁধ সহ অন্যান্য অকৃষি জমির পরিমান ২ হাজার ৬শ একর। স্বাধীনতার পর থেকে কৃষি জমিতে বাড়ী ঘর সহ বিভিন্ন অবকাঠামো অপরিকল্পিত ভাবে নির্মানের ফলে ৩শ একর কৃষি জমি জ্যামিতিক হারে কমেছে। সেই ক্ষেত্রে উপজেলায় মোট অকৃষি জমির পরিমান দাড়িয়েছে ২ হাজার ৯শ ৩৬ একর।
বদলগাছী উপজেলা কৃষি অফিসার হাসান আলী এর সাথে কথা বললে সে উপজেলা কৃষি জমি হ্রাসের কথা স্বীকার করে বলেন দ্রত কৃষি জমি হ্রাস রোধ করতে না পারলে কৃষি উৎপাদনে ব্যাপক বিপর্যয় নেমে আসবে। অপর দিকে বিল ঝিল ভরাট করার পর পানি সংকট সৃষ্টি এবং বৃক্ষ নিধন করা হচ্ছে প্রতিনিয়ত। যার কারনে জলবায়ু পরিবর্তন ঘটায়ে অতিবৃষ্টি অনাবৃষ্টি জনিত কারনে বায়ুমন্ডলের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাচ্ছে। হারাচ্ছে জীব বৈচিত্র এবং পানির স্ত্রর। ফলে বিরুপ প্রভাব পড়ছে কৃষির উপর।
কৃষি জমি হ্রাস রোধ করতে না পারলে কৃষি উৎপাদন কমিয়ে উপজেলার জন খাদ্য ঘাটতি পর্যায়ে পৌঁছাবে তিনি মনে করেন। শুধু তাই নয় প্রাকৃতিক পরিবেশেরও ভয়ংকর বিপর্যয় ঘটতে পারে একই সাথে পরিবেশ মারাত্মক হুমকির সম্মুখীন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এজন্য বদলগাছী উপজেলার সচেতন কৃষি জমি রক্ষার জন্য প্রশাসনের আশুদৃষ্টি কামনা করেছেন।
সময়নিউজ২৪.কম/ বি এম এম 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *