নওগাঁয় অসহায় মানুষদের পাশে থেকে চিকিৎসা সহ সার্বিক সহযোগীতা করে চলা এক সংবাদকর্মী’র কাহিনী

স্টাফ রিপোর্টারঃ

 

শুধুমাত্র লোকজনের ভালোবাসা পেতেই, ইচ্ছাশক্তি ও সৎ সাহস নিয়ে সমাজের অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়িয়ে সাহায্যের হাত বারিয়ে সহযোগীতা করে চলা একজন হলেন, নওগাঁর শহদিুল ইসলাম জি এম মিঠন। শহদিুল ইসলাম জি এম মিঠন নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার চৌমাশিয়া গ্রামের কৃষক মোঃ আশরাফ আলীর ছেলে। পেশায় তিনি একজন সংবাদকর্মী ও মোবাইল ফোন ব্যবসায়ী। ইতিমধ্যেই তার উদ্যোগে চকরাজা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যায়য়ের ৪ র্থ শ্রেণীতে পড়–য়া একচোঁখধারী শিশু শিক্ষার্থীর চিকিৎসা সহ ও চৌমাশিয়া আদিবাসী পল্লীর আদিবাসী পাহান পরিবারের ২ সন্তানের জনক সুরেন পাহানের অপারেশানের ব্যবস্থা, এমনকি সড়ক দূর্ঘটনায় পুঙ্গুত্ব বরনকারী ভীমপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক এক নেতাকে নতুন হুইল চেয়ার দেয়া সহ খাবার জন্য চাউল ও তার পরিবারের লোকজনকে পড়নের কাপড় ও কিনে দেয়া হয়েছে এ সাংবাদিক এর উদ্যোগে।

এতেই শেষ না তিনি চলতি শীত মৌসুমে ও বিগত বছর গুলোর ন্যায় বিশেষ করে সমাজের অসহায়-দরিদ্র পরিবারের শীর্তাত বৃদ্ধ ও বৃদ্ধাদের সহ অসুস্থ্যদের শীত নিবারনের জন্য কম্বল বিতরন শুরু করেছেন। বিগত শীত মৌসুমে জাতীর বিবেক, সমাজের দর্পন ও মহান পেশা সাংবাদিকতা’র পাশাপাশি শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন এর উদ্যোগে দরিদ্র পরিবারের মোট ৪শত ১৫ জন বৃদ্ধ ও বৃদ্ধা সহ অসুস্থ্যদের মাঝে শীত বস্ত্র কম্বল বিতরন করা হয়েছিলো। এবারও চলতি শীতের শুরুতেই তিনি প্রথমেই গভীররাতে শীতে কাতর এক ব্রেন-বির্কৃত (উৎপল-পাগলার) শরীরে জড়িয়ে দেন কম্বল এবং ঐ রাতেই (পাপকে ঘৃণাকরো পাপিকে না) ধারনা থেকে বিভিন্ন সময় বা বিভিন্ন মামলায় আটককৃত বা গ্রেফতার কৃত আসামীদের শীত নিবারনের জন্য জেলার নওহাটামোড় পুলিশ ফাঁড়িতে দুটি কম্বল দেওয়ার মাধ্যমে শুরু করেছেন কম্বল বিতরন।

 

এব্যাপারে সাংবাদিক শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন বলেন, আসলে যেকোন ব্যাক্তি শুধুমাত্র তার-চিন্তা চেতনা ও সেবা করার মন মানসিকতা থাকলেই সমাজের অসহায় মানুষদের সেবা বা সহযোগীতা করা সম্ভব। তিনি বলেন, আমি শুধুমাত্র ইচ্ছাশক্তি ও সৎ সাহস নিয়ে আমার সাথে ওঠা-বসাকরা পরিচিত জনদের আর্থিক সহ সার্বিক সহযোগীতায় বিগত বছর গুলোর ন্যায় চলতী শীত মৌসুমে ও জেলার বিভিন্ন উপজেলার গ্রামগঞ্জে খুজে খুজে বের করে সমাজের পর্কৃত দরিদ্র পরিবারের বিশেষ করে বৃদ্ধ, বৃদ্ধা, শিশু ও অসুস্থ্যদের শরীরে শীত নিবারনের জন্য কম্বল তুলে দিচ্ছি, এমনকি চলতী শীতের শুরুতে ফেসবুকে দেয়া পোস্টের ছবি দেখে পোষ্টকারী একজন গবাদী পশু চিকিৎসক জাকির হোসেন এর সাথে যোগাযোগ করে ইতি মধ্যেই জেলার নিয়ামতপুর উপজেলার ফেসুকে দেখা বৃদ্ধ ও বৃদ্ধার জন্য ও কম্বল পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে ফেসবুকে ছবি পোস্টকারী গবাদী পশু চিকিৎসক জাকির হোসেন এর মাধ্যমে।

 

তিনি আরো জানান, শুধুমাত্র মানবিকতার টানে সাংবাদিকতার পাশাপাশি এ উদ্যোগ আমি নিলে ও আমার সাথে থেকে সেবামূলক কাজ গুলোতে আর্থিক সহ সার্বিক সহযোগীতা করছেন, চাকুরীজিবী নয়ন চন্দ্র পোদ্দার, চাকুরীজিবী ও ঔষুধ ব্যবসায়ী গৌতম কুমার, এ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম নূর ঢাকা, ব্যবসায়ী আসিফ আকবর রুদ্র ঢাকা শহর, শাহীন চৌধুরী সহ সাঈদ হোসেন, নজরুল ইসলাম বাবু, সাইফুল রহমান, এরশাদ আলী, বিপ্লব হোসেন মন্ডল, আল-আমিন, পল্লী চিকিৎসক এনামুল হক ফাইন ও পল্লী চিকিৎসক আসাদুজ্জামান রানা সহ সাথেচলা একঝাক তরুন। এছাড়া ও আরো কিছু ব্যাক্তিবর্গ আছেন তারা ও আর্থিক সহযোগীতা করেন।

 

উল্লেখ্য- সাংবাদিক শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন এর লেখা সংবাদ বা প্রতিবেদন মিডিয়ায় প্রকাশের কারনে ও ইতিমধ্যেই বাগাচারা এলাকার ক্যানসার আক্রান্ত শিশু জিহাদ এর পরিবার, বাগধানা গ্রামের অগ্নীদগ্ধ হয়ে মারা যাওয়া তরুনী অন্তসত্যা গৃহবধূ মনিরার পরিবার ও মাতাজিহাট কানচকুড়ি (চেরাগপুর) গ্রামে একই মায়ের গর্ভে জ¤œনেয়া ৪ পঙ্গুর পরিবার সরকারী অর্থ সহ দেশ ও বিদেশ থেকে পেয়েছেন নগদ অর্থ সহ গাভী-বাছুর ও পোশাক। এছাড়া নাম বা ঠিকানা বিহীন নওগাঁর নওহাটামোড় বাস ষ্টান্ডে দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে বসবাসকারী (ময়না নামে) পরিচিত অজ্ঞাত এক বৃদ্ধা (৭৫) কে গুরুতর অসুস্থ্য অবস্থায় নওগাঁ সদর আধনিক হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসার ব্যবস্থা ও করেছিলেন সাংবাদিক শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন।

 

 

সময় নিউজ২৪.কম/এমএম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *