নওগাঁয় এক প্রসুতিকে ভুল চিকিৎসার অভিযোগ

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠনঃ
নওগাঁয় বেডো জেনারেল হাসপাতালে শাবনুর বানু (৩২) নামে এক প্রসুতিকে ভুল চিকিৎসার অভিযোগে জেলা সিভিল সার্জনসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে ভুক্তভোগী পরিবার। ঘটনাটি তদন্ত পূর্বক দ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের  দাবি জানিয়েছেন। সোমবার বিকালে অভিযোগটি করেন প্রসূতি’র স্বামী  মিজানুর রহমান।
এব্যাপারে ডেপুটি সিভিল সার্জন মঞ্জুর -এ মুর্শেদ জানান, বেডো জেনারেল হাসপাতালে ভুল  চিকিৎসার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনাটি তদন্তে দ্রুত তদন্ত কমিটি গঠন করে
প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
অভিযোগকারি মিজানুর রহমান বগুড়া জেলার আদমদিঘী উপজেলার তারাপুর গ্রামের  আছির উদ্দিনের ছেলে। অভিযুক্তরা হলেন, শহরের বাইপাস সড়কের বোয়ালিয়া এলাকায়
অবস্থিত বেডো জেনারেল হাসপাতাল মাহফুজুর রহমান(৪৭) ও ডাক্তার এসএম বজলুর রহমান (৫০)।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ৩০ অক্টোবর বেডো জেনারেল হাসপাতালে গর্ভবর্তী গৃহবধূ শাবনুর বানুকে নিয়ে যান স্বজনরা। এরপর চিকিৎসকের পরামর্শে পরেদিন সকাল ৮ টায় সিজারের সময় নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের ও ২৪ ঘন্টা পর ডাক্তার এসএম বজলুর রহমান পহেলা নভেম্বর পর সিজার করেন। এতে সদ্যজাত মেয়ে সুস্থ থাকলেও ভুল চিকিৎসায় শাবনুরের অবস্থার অবনতি ঘটলে ক্লিনিকের মধ্যে বাকবিতন্ডার ঘটনা ঘটে। তারপর তাদের কোন কথা না শুনে অসৌজন্য ব্যবহার করেন। এক পর্যায়ে রোগির আরো শারীরিক অবস্থা অবনিত হলে ডাক্তার  এসএম বজলুর রহমান দায় এড়াইতে রেফার্ডের পরামর্শ দেন। এমতাবস্থায় কয়েকজন  ড্রেসিং শুরু করেন। তাকে সন্দেহ হলে তিনি নিজেকে ডাঃ মুক্তাদির পরিচয় দেন এবং  বলেন তিনি ডাঃ দিলরাজ বানুর স্বামী। এক পর্যায় ইসলামী হাসপাতালে উন্নত  চিকিৎসার জন্যে ৯ নভেম্বর রাতে ভর্তি করা হয়। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক রোগীর
অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (রামেক) ভর্তি করানোর পরামর্শ দেন। সাথে সাথে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হলে ওই রাতেই  কর্মরত চিকিৎসক রোগীর আশঙ্কাজনক অবস্থা দেখে আইসিইউ-তে ভর্তি করে নেন।
অভিযোগকারি মিজানুর রহমান অভিযোগে আরো উল্লেখ করেন, বেডো জেনারেল হাসপাতালে ভুল চিকিৎসার জন্যে তার স্ত্রী মৃত্যুর মুখে চলে গিয়েছিল। এই অপচিকিৎসার কারনে তার প্রায় ২ লাখ টাকা খরচ হয়েছে। তিনি আরো বলেন, তার মতো আর কেউ যেন ভোগান্তির শিকার না হোন এজন্যই চিকিৎসা অবহেলার সাথে জড়ীতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানান তিনি।
বেডো জেনারেল হাসপাতালের ম্যানেজার মুক্তাদির হোসেন সকল ভুল চিকিৎসার অভিযোগ অস্বীকার করে সাংবাদিকদের বলেন, ওই রোগীর আগে থেকেই শারীরিক অবস্থা খারাপ ছিল।
তাই দ্রুত উন্নত চিকিৎসার জন্যে অন্য হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে।
নওগাঁর সিভিল সার্জন ডাঃ এবিএম আবু হানিফ জানান, ওই হাসপাতালের কি কি অনুমতি আছে তা ক্ষতিয়ে দেখে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
সময়নিউজ২৪.কম/ বি এম এম 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *