নওগাঁয় শিক্ষক কর্তৃক ছাত্রীকে ধর্ষন, মামলা দায়ের

শহিদুল ইসলাম (জি এম মিঠন) নওগাঁ জেলা প্রতিনিধিঃ

নওগাঁয় শিক্ষক কর্তৃক ছাত্রীকে ধর্ষন করার ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের ও ধর্ষনের ঘটনাটি প্রকাশ পাওয়ার পর এলাকার লোকজনের মাঝে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হওয়ার পর অবশেষে অভিযুক্ত শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করেছে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি। তবে সংবাদ লেখা সময় পর্যন্ত ছাত্রী ধর্ষনকারী অভিযুক্ত শিক্ষককে এখনো গ্রেফতার করতে পারেনি থানা পুলিশ। সম্পতি শিক্ষক কর্তৃক ছাত্রী ধর্ষনের ঘটনাটি ঘটেছে নওগাঁর মান্দা উপজেলায়।

স্থানিয় ও মামলা সুত্রে জানাগেছে, মান্দা উপজেলার ছোট চক-চম্পক বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক আমিনুল ইসলাম গত ১৮ অক্টোবর সকালে তার কাছে প্রাইভেট পড়তে আসা নবম শ্রেণীর ছাত্রী (১৪) কে ধর্ষণ করেন। ঐদিনই ধর্ষীতা ছাত্রী বাড়িতে গিয়ে ঘটনাটি প্রকাশ করলে। এ ঘটনায় ঐ ছাত্রীর অভিভাবকরা ঐ দিনই ঘটনাটি প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষককে জানায়। এরপর প্রধান শিক্ষক কোন পদক্ষেপ না নেয়ায়। ঘটনার ২ দিন পর ধর্ষনকারী শিক্ষক আমিনুল ইসলাম কে আসামী করে মান্দা থানায় নারী-শিশু নির্যাতন আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়।

অপরদিকে শিক্ষক কর্তৃক ছাত্রী ধর্ষনের ঘটনাটি এলাকার সর্ব-সাধারনের মধ্যে প্রকাশ পাওয়ার পর থেকে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হয়। অবশেষে ধর্ষনের ৬ দিন পর গত বৃহস্পতিবার দুপুরে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি এক জরুরি সভায় বসে অভিযুক্ত সহকারী শিক্ষক আমিনুল ইসলামকে সাময়িক সাময়িক বরখাস্ত করেন। সাময়িক বরখাস্ত করার বিষয়টি নিশ্চিত করে ছোট চকচম্পক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রহিদুল ইসলাম জানান, বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক আমিনুল ইসলামের বিরুদ্ধে ছাত্রী কেলেঙ্কারী সহ এ ঘটনায় মামলা হওয়ার কারনে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি এক জরুরী সভায় বসে অভিযুক্ত শিক্ষককে সাময়িকভাবে বরখাস্তের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। ছাত্রী ধর্ষনকারী অভিযুক্ত শিক্ষক ছোট চকচম্পক গ্রামের মৃত মহির উদ্দিনের ছেলে আমিনুল ইসলাম।

অপরদিকে ছাত্রী ধর্ষনকারী অভিযুক্ত শিক্ষক আমিনুল ইসলামকে ঘটনার ১০ দিনে ও থানা পুলিশ আটক বা গ্রেফতার করতে না পারায় ধর্ষীতা ছাত্রী সহ তার পরিবারের লোকজন আতংকের মধ্যেদিয়ে দিবা-রাত্রী পর করছেন বলে স্থানিয়রা জানিয়েছেন।
তবে এ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মান্দা থানার উপ-পরিদর্শক আমিরুল ইসলাম প্রতিবেদককে বলেন, শিক্ষক কর্তৃক ছাত্রী ধর্ষন ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করার পূর্বেই ঘটনাটি বুঝতে পেরে ঐ শিক্ষক এলাকা থেকে পালিয়ে রয়েছেন। তবে তাকে আটকের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলেও জানিয়েছেন মামলার তদন্তকারী এ কর্মকর্তা।

 

সময় নিউজ২৪.কম/এমএম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *