নতুন বছরের প্রথম দিনে বই উৎসবে মাতবে চান্দিনার ১ লাখ শিক্ষার্থী

আকিবুল ইসলাম হারেছ,চান্দিনা(কুমিল্লা)প্রতিনিধিঃ

 

প্রস্তুত হয়ে পড়ে রয়েছে প্রায় ৬ লাখ ৬৫ হাজার নতুন বই। ইতিমধ্যে চান্দিনা উপজেলার ১৩টি  ইউনিয়নের ৬টি ক্লাস্টারে পৌঁছেও গেছে বইগুলো। নতুন বইয়ের গন্ধ আর স্পর্শ পেতে এখন অপেক্ষার প্রহর গুনছে উপজেলার প্রায় ১ লাখ শিক্ষার্থী। এ বছর চান্দিনা উপজেলাতে প্রাক প্রাথমিক হতে মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে বিতরণ করা হবে এসব বই। নতুন বছরের প্রথম দিনই এসব বই তুলে দেওয়া হবে শিকক্ষার্থীদের হাতে। ২০২০ সালের প্রথম দিনে বই উৎসবে মাতবে চান্দিনার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীরা।

 

উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা জানায়, চান্দিনার ১৩টি ইউনিয়নে ১৩৫টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,১২২টি কিন্ডার গার্টেন,২টি এনজিও পরিচালিত বিদ্যালয়সহ ২৫৯ টি বিদ্যালয়ের ৬৫ হাজার ৮০০ জন শিক্ষার্থীর জন্য চান্দিনায় এসেছে ১ লাখ ৬২ হাজার ৮শটি নতুন পাঠ্য বই। ইতিমধ্যে চান্দিনা উপজেলার ৬টি ক্লাস্টার (উপজেলা সদর,মাধাইয়া,মহিচাইল,আলীকামোড়া,কংগাই,নবাবপুর) পৌঁছে গেছে এসব বই।

 

অপরদিকে চান্দিনা মাধ্যমিক অফিস সুত্রে জানা যায়,চান্দিনার ৩৪টি উচ্চ বিদ্যালয়,২৭টি (ইবতেদায়ী ও দাখিল) মাদ্রাসার ৪৫ হাজার ৫০০ জন শিক্ষার্থীর জন্য এসেছে ৬ লাখ ৬ হাজার ২০০ টি নতুন পাঠ্য বই।

আগামী ১ জানুয়ারি উৎসবমুখর পরিবেশে সংশ্লিষ্ট এলাকার সংসদ সদস্য, উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সভাপতি এবং প্রাথমিক শিক্ষা অফিসাররা বই বিতরণে অংশ নেবেন।

 

উপজেলার জামিরাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশু শ্রেণি থেকে নতুন বছরে প্রথম শ্রেণিতে পা দিবে সাফা আক্তার।নতুন বই কবে দিবে? মা-বাবার কাছে প্রতিদিন এমন প্রশ্ন বেশ কয়েকবার করে সে।সাফা বলে, আমার বইগুলো পুরান হয়ে গেছে। বার্ষিক পরীক্ষার পর স্যাররা বলেছে কয়দিন পর আমাদের নতুন বই দিবে। স্যাররা নতুন বই দিলে, আমি নতুন বই নিয়ে আম্মুর সাথে প্রতিদিন স্কুলে যাবো।

 

চান্দিনা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, কিছুদিন আগেই এসব বই সব ইউনিয়নের ক্লাস্টার অফিসে পৌঁছেছে। বর্তমানে সেখান থেকে ইউনিয়নের প্রতিটি প্রাথমিক স্তরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বইগুলো শিক্ষার্থীর সংখ্যানুযায়ী পৌঁছানো হচ্ছে। সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী প্রত্যেক শিক্ষার্থীই নতুন বই পাবে। নতুন বছরের প্রথম দিনটি শিশু শিক্ষার্থীদের জন্য ‘বই উৎসব’।

 

এদিকে কুমিল্লা জেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা জানায়, চান্দিনাসহ কুমিল্লার ১৭টি উপজেলার মধ্যে আদর্শ সদরে ৪ লাখ ৩ হাজার ১০৯টি, লাকসামে ২ লাখ ৫ হাজার ৮০টি, দেবিদ্বারে ৩ লাখ ২০ হাজার ৮৫০টি, মুরাদনগরে ৪ লাখ ১৭ হাজার ৩০টি, দাউদকান্দিতে ২ লাখ ২১ হাজার ৭৯৬টি, চৌদ্দগ্রামে ২ লাখ ৪৭ হাজার ৪৭৬টি, ব্রাহ্মণপাড়ায় ১ লাখ ৭৭ হাজার ১৫০টি, বরুড়ায় ২ লাখ ৩৮ হাজার ৫শ’টি,বুড়িচংয়ে ২ লাখ ৪৫ হাজার ৪৩০টি, হোমনায় ১ লাখ ৪৯ হাজার ১৭২টি, নাঙ্গলকোটে ২ লাখ ৫১ হাজার ১ শ’টি, মেঘনায় ৫৮ হাজার ৫ শ’টি, মনোহরগঞ্জে ১ লাখ ৩৯ হাজার ২শ’টি, তিতাসে ১ লাখ ৪৯ হাজার ৬শ’ টি, সদর দক্ষিণে ১ লাখ ৯২ হাজার ১৪৩টি এবং নবগঠিত লালমাই উপজেলায় ৯৭ হাজার ৪৯২টি বই বিতরণের জন্য পাঠানো হয়েছে।

 

 

সময় নিউজ২৪.কম/এমএম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *