নিয়মিত বালু ও মাটি পরিবহনে করতোয়া বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ : সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ নীরব 

সরকার লুৎফর রহমান,গাইবান্ধাঃ
গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী উপজেলার হোসেনপুর ইউনিয়নের কদমতলী ও কিশামত চেরেঙ্গা হতে ট্রাক্টর ও মিনি ট্রাকে করে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের উপর ও ইউপি রাস্তা দিয়ে নিয়মিত বালু ও মাটি পরিবহনের ফলে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে বাঁধ ও রাস্তা। বিশেষ করে ধ্বংসের মুখে পড়েছে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধটি। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি না থাকায় জনমনে দেখা দিয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া।
সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, করতোয়া নদী হতে স্যালো মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করে স্তুুপ করার পর এখন দিনে এবং রাতে ট্রাকে করে বালু পরিবহন করছে। এই বালু সোজা বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ব্যবহার করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে বিভিন্ন স্থানে। নিয়মিত বালু পরিবহনের ফলে বাঁধের প্রায় ১ ফুট গভীর ও বালুময় হওয়ায় সর্বসাধারণের চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে এবং বাঁধের মাটি মিহি বালুতে পরিনত হয়েছে এবং বাতাসে উড়তে থাকা কারণে হচ্ছে বায়ু দুষন। অপরদিকে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধটির বিভিন্নস্থানে দেবে গিয়ে অসংখ্য গর্ত সৃষ্টি হওয়ায় এলাকার সর্বসাধারণের মাঝে সৃষ্টি ব্যাপক ক্ষোভ।
ইউপি চেয়ারম্যান তৌফিকুল আমিন মন্ডল টিটু বলেন, কে বা কাহারা এ বালু উত্তলন ও পরিবহন করছে তা আমি জানিনা এবং রাতের আধারে এই কাজগুলো করছে।
এ বিষয় ইউনিয়ন তৌসিলদার হুমায়ন আহমেদ  বলেন,তাদেরকে আমি  বারণ করেছি তাঁরা কথা শুনছে না।
ইউপির ৩ নং ওয়ার্ড সদস্য মিজানুর রহমান বলেন, বারবার বলার পরও তারা বাঁধ ও রাস্তাগুলো নষ্ট করছে এবং তাদের কে থামানো যাচ্ছেনা।
বন্যা নিয়ন্ত্রণ এ বাঁধটি ব্যাপক ক্ষতি হওয়ায় মাটি ও বালু বিক্রেতারা সৃষ্ট খাদে ইট দিয়ে কিছু কিছু স্থানে সংস্কার করতেও দেখা গিয়েছে। এ বাঁধটি চলাচলের রাস্তা হিসেবে ব্যবহৃত হলেও বর্তমানে তা অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।
সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কামনা ও দ্রুত বাঁধটি রক্ষায় উপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণের অপেক্ষায় এলাকার সচেতন নাগারিক ।
সময় নিউজ২৪.কম/এমএম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *