নড়াইলের চিহিৃত পাচারকারি তরুনীদের চাকুরীর লোভ দেখিয়ে গড়ে তুলেছেন বিশাল পতিতালয়

 

উজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা প্রতিনিধিঃ

 নড়াইলের চিহিৃত চোরাকারবারি ও নারী পাচারকারি রনি শেখ ওরফে ইয়াদুলের বিরূদ্ধে বাংলাদেশী যুবতীদের নিয়ে ভারতে পতিতালয় চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, নড়াইলের কালিয়া উপজেলার জামরীলডাঙ্গা গ্রামের রিকাইল শেখ’র ছেলে রনি শেখ ওরফে ইয়াদুল দীর্ঘ দিন যাবত চোরাকারবারি ও নারী পাচারের ব্যবসা করে আসছে। আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায় জানান, সে ভারত থেকে বিভিন্ন নেশাদ্রব্য এনে বাংলাদেশে বিক্রি করে। বাংলাদেশ থেকে চোরাই পথে বিভিন্ন মালামাল নিয়ে ভারতে বিক্রি করে। আবার ভারত থেকে বিভিন্ন মালামাল এনে বাংলাদেশে বিক্রি করে।

চোরাই পথে আনা নেয়া মালামালের মধ্যে বেশির ভাগই বিভিন্ন নেশাদ্রব্য। সে পাসপোর্টে যাতায়াতের পাশাপাশি চেরাই পথে ভারত যাতায়াত করে। নড়াইল সহ পার্শ্ববর্তী জেলা হতে যুবতীদের বিভিন্ন দালাল ও প্রতারকদের মাধ্যমে জোগাড় করে ভালো চাকুরী দেয়ার লোভ দেখিয়ে ভারতে নিয়ে বিভিন্ন পতিতালয়ে বিক্রি করে।

সে ভারতের উত্তর ২৪ পরগনার মাটিয়া থানার বশিরহাটে বসবাস করে। সেখানে নিজস্ব একটি পতিতালয় রয়েছে। ওই পতিতালয়ে ৪০ থেকে ৫০ জন বাংলাদেশী তরুনী রয়েছে। যাদের অধিকাংশর বাড়ি নড়াইল ও পার্শ্ববর্তী জেলায়। ওই পতিতালয় হতে প্রতি মাসে সে কয়েক লক্ষ টাকা আয় করে। পতিতালয় ব্যবসা চালানোর জন্য ভারতে তার একাধিক স্ত্রী রয়েছে। নিজ এলাকায় রয়েছে সন্ত্রাসী বাহিনী। সন্ত্রাসীদের সাথে তার গভীর সখ্যতা থাকায় এলাকার লোকজন ভয়ে চুপ থাকে। পুলিশি তৎপরতা দেখলে ভারত চলে যায়। আবার ভারতে চাপাচাপি হলে বাংলাদেশে চলে আসে।

তবে স্থানীয় থানা পুলিশ ম্যানেজ করে ব্যবসা করায় নির্বিঘ্ন চলছে তার সকল অবৈধ ব্যবসা। তার প্রতারনার ফাঁদে পা দিয়ে যাদবপুর, খড়রিয়া ও জামরীলডাঙ্গার অনেক মেয়ে ভারতে পাচার হয়েছে। অনেক তরুনীকে তার পতিতালয়ে আটকে দেহ ব্যবসায় বাধ্য করা হচ্ছে। অনেক তরুনীর অভিভাবক মেয়েকে ফেরত পেতে তাকে লক্ষ লক্ষ টাকা দিয়েছে। কিন্তু টাকা নিয়েও সে প্রতারনা করছে। তাদের মেয়ে ফেরত এনে দিচ্ছে না। লজ্জায় এবং ভয়ে তারা কোথাও অভিযোগ করতে পারছেন না। সুচতুর ইয়াদুল শেখ ওরফে রনি শেখ একেক সময় একেক নামে নিজেকে পরিচয় দেয়।

ভারতে থাকা কালে নিজেকে ভারতীয় নাগরিক হিসেবে পরিচয় দেয়। সচেতন মহল তাকে আটক করে সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে অসহায় মেয়েদের উদ্ধারের দাবি জানিয়েছেন।

সময় নিউজ২৪.কম/এমএম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *