নড়াইলে পৃথক ঘটনায় শিক্ষার্থীর চোখ উপড়ে ফেলা ও কিশোরকে বটি দিয়ে কুপিয়ে জখম মৃত্যুর যন্ত্রনায় ছটফট গ্রেফতার-১

 
SSL Certificate for just $8.88 with Namecheap

উজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা প্রতিনিধি:

সাহারা বেগম (২৩) নামের মেয়ে তার আপন ছোট ভাই রাব্বি (১৫)কে বটি দিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে রাস্তায় ফেলে রাখে। নড়াইলে আহত শিশু শিক্ষার্থী সিমান বিশ্বাস। নড়াইলে অমানবিক নির্যাতন করে এক স্কুলছাত্রের চোখ উপড়ে ফেলার অভিযোগ উঠেছে প্রতিবেশী প্রভাত সরকারের বিরুদ্ধে।

আহত শিক্ষার্থীর নাম সিমান বিশ্বাস(১০)। আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায় জানান, দিবাগত রাতে নড়াইল সদর উপজেলার মুলিয়া ইউনিয়নের কোড়গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নির্যাতিত ৪র্থ শ্রেণি ছাত্র সিমান কোড়গ্রামের টুটুল বিশ্বাসের ছেলে। অভিযুক্ত প্রভাত সরকার নড়াইল সদর উপজেলার মুলিয়া ইউনিয়নের সাতঘরিয়া গ্রামের পরিমলের ছেলে। তিনি নড়াইল সদর উপজেলার দোভোগ বাজারে স্বণের ব্যবসা করেন।

এ ঘটনার পর প্রভাত পলাতক রয়েছেন। সিমানের পরিবারের অভিযোগ, সিয়ামের বাড়ির সামনের রাস্তায় জ্বালানি পাটকড়ি শুকাতে দেয়া ছিল। পাটকড়ি তুলছিল সে। এ সময় প্রতিবেশী একই গ্রামের প্রভাত সরকার এসে রাস্তা ময়লা করছিস বলে বাঁশ দিয়ে বেধড়ক মারপিট শুরু করে। একপর্যায়ে চোখের ভেতর বাঁশের মাথা দিয়ে চাপ মারলে চোখ উপড়ে যায় শিশুটির। তার চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতাল নিয়ে যায়। হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুটির অবস্থা আশঙ্কাজনক হওযায় তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন।

বর্তমানে শিশুটি খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। নড়াইল সদর থানার ওসি মো. ইলিয়াছ হোসেন জানান, ঘটনা আমি শুনেছি, মামলার প নড়াইলে বড় বোন বটি দিয়ে কুপিয়ে ছোট ভাই কে হত্যার চেষ্টা, মৃত্যুর সাথে পান্জা লড়ছে ছোট ভাই। এছাড়াও নড়াইলের গোয়ালবাড়ি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। জানাযায়,সাহারা (২৩) নামের একটি মেয়ে তার আপন ছোট ভাই রাব্বি (১৫-১৬) কে বটি দিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে রাস্তায় ফেলে রাখে।

তার গলায় ডান পিঠে সহ বিভিন্ন স্থানে কোপায় এ সময় তার আন্তচিৎকারে এলাকার প্রায় শতাধিক মানুষ উপস্থিত হয়ে সাপ খেলা দেখে দাড়িয়ে দাড়িয়ে,তবুও পুলিশকে খবর দেয়নি বা এ কিশোরকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে জানি। পরে দক্ষিণ নড়াইল গ্রামের পরিবহন শ্রমিক অলিয়ার জানাল তিনি সাথে সাথে দুই তিন জন সহ ঘটনাস্থলে পৌঁছালে দেখে একটি ছবির সুটিং চলছে।

মৃত্যু যন্ত্রনায় রাস্তার উপরে পড়ে ছটফট করছে আর তাকে ঘিরে চার পাসে ঘিরে অসংক্ষ মানুষ দাড়িয়ে কানাঘুষা করছেন কিন্তু কেউ তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে আসছে না। ওলিয়ার রহমানসহ কয়েক জন তাকে নড়াইল সদর হাসপাতালে নিয়ে জান এবং পুলিশে খবর দেন।

পরে পুলিশ আসামিকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যায়। এদিকে নড়াইল সদর হাসপাতালে আনলে কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য যশোহর নিতে বলেন। এদিকে আহতের পরিচয় বা আত্তিও স্বজন কাউকে পাওয়া যাচ্ছে না। এখন কে করবে এ কিশোরের চিকিৎসা কে এ অসহায় কে নিয়ে যাবে যশোহর।

কোন কিছু চিন্তা না করেই হাসপাতালের ভিতর থেকে আমি মো:রফিকুল ইসলাম ওলিয়ার,সাথিতালুকদার সহ কয়েক জন মিলে শুরু করি সাহাজ্য চাওয়া তাৎক্ষণিক স্যালাইনসহ ঔসুধ পত্র কেনা হয়। প্রাথমিক চিকিৎসার পর,অবস্থার অবনতি হওয়ায় আবারও সাহাজ্য তুলে সরকারি এ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করে তাকে যশোহর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদিকে এখনো জানাযায়নি এ দঘটনা কিসের জন্য।

জানাযায় ভাদুলীডাঙ্গা গ্রামের শরিফুল ড্রাভার দুটি বিবাহ করেন এক বৌও বিদেশে থাকেন আর এক বৌও কে নিয়ে ও ৩ ছেলে আর ১ কণ্যা নিয়েই সংসার গোয়ালবাড়ি ওই গ্রামে। শরিফুল একজন পরিবহন শ্রমিক সব সময়ই তাকে বাইরে বাইরে থাকতে হয়। প্রস্তুতি চলছে।


SSL Certificate for just $8.88 with Namecheap

সময় নিউজ২৪.কম/এমএম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *