নড়াইলে ভিজিএফ’র চাল কালো বাজারে বিক্রি,আটক-৫

উজ্জ্বল রায়, নড়াইল :
নড়াইলের কাশিপুর ইউনিয়ন এলাকা থেকে কালো বাজারে বিক্রির উদ্দেশে পাচারের সময় ১২০ বস্তা ভিজিএফ চাল আটক করেছে পুলিশ। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে দুইজন নছিমন চালক ও একজন লেবারকে আটক করা হয়েছে। আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায় জানান, পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, গতকাল নড়াইলের কাশিপুর ইউনিয়নের সিমান্তবর্তী ও নড়াইল সদর উপজেলার চৌগাছা বাস স্টান্ডের পাশে চায়না রেলওয়ে প্রজেক্টের সামনে পাকা রাস্তার ওপর দুটি নছিমনে করে ১২০ বস্তা চাল নিয়ে নড়াইল মুখো যেতে দেখে এলাকাবাসী পুলিশে খবর দেয়।

সংবাদ পেয়ে থানার সংগীয় ফোর্স নিয়ে সেখানে পৌছে বিক্রয় নিষিদ্ধ খাদ্য অধিদপ্তর লেখা সম্বলিত ৩০ কেজির প্রতি বস্তা হিসেবে ৩ হাজার ৬’শ কেজি চাল ও দুটি নছিমনসহ চালককে আটক করেন। আটককৃতরা হলেন, কাশিপুর ইউনিয়নের পদ্মবিলা গ্রামের শেখ তবিবুর রহমানের ছেলে কামরুল শেখ, কাশিপুর গ্রামের বাদশা শিকদারের ছেলে রিয়াজ শিকদার ও নড়াইলের লোহাগড়া খাদ্য গোডাউনের লেবার সরদার জগন্নাথ সরদার। উপজেলা খাদ্য পরিদর্শক কামরান হোসেন বলেন, পুলিশের কাছে আটককৃত ১২০ বস্তা চাল নড়াইলের লোহাগড়া খাদ্য গোডাউনের বলে তিনি সনাক্ত করেছেন। যাহা শুক্রবার দুপুরে কাশিপুর ইউনিয়নের অনুকুলে ঈদুল আযহা উপলক্ষে ভিজিএফ’র চাল প্রদান করা হয়েছে।

নড়াইলের কাশিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ মতিয়ার রহমান জানান, নড়াইলের কাশিপুর ইউনিয়ন পরিষদ শুক্রবার কোন ভিজিএফ এর চাল উত্তোলন করেন নাই। থানার অফিসার ইনচার্জ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, এ ধরনের অপরাধ দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) তদন্তাধীন বিষয় হওয়ায় নথিপত্র দুদকে প্রেরন করা হবে। দুদক তদন্ত করে দোষিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করবে। অপরদিকে নড়াইলে ৩ মেট্রিক টন ভিজিএফের চাল আত্মসাতের ঘটনায় নড়াইল সদর উপজেলার বিছালী ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান ও সচিবকে তিনদিন করে কারাদন্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

দন্ডপ্রাপ্তরা হলেন-বিছালী ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান গাজী হাফিজুর রহমান ও ইউপি সচিব অসিম কুমার বিশ^াস। ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এ কারাদন্ডাদেশ দেন। ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা গেছে, ঈদুল আজহা উপলক্ষে হতদরিদ্রদের জন্য বরাদ্দকৃত ভিজিএফের তিন মেট্রিক টন চাল যথাযথ ভাবে বিতরণ না করে নড়াইল সদর উপজেলার বিছালী ইউনিয়নের রুখালি বাজারে প্যানেল চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমানের দোকানঘরে আত্মসাতের চেষ্টা করেন তারা। এ খবর পেয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে তাদের দন্ডাদেশ দেন এবং চালগুলো জব্দ করেন। এক হাজার ১৭৯ হতদিরদ্র মানুষের মাঝে বিতরণ করার কথা থাকলেও মাত্র ২০৫ জনকে দেয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *