পদ্মা সেতুতে মাথা লাগবে আর ছেলে ধরা সক্রিয় আছে এমন বিষয়টি গুজব

চাঁদপুর প্রতিনিধি :
পদ্মা সেতুতে মাথা লাগা ছেলেধরা নিছক গুজব। জেলার কোথাও বাস্তবে কোনো ছেলেধরা অটক হয়েছে কিংবা শিশু উদ্ধার হয়েছে বলে কেউ স্পষ্ট করে বলতে পারছে না। পদ্মা সেতুতে মাথা লাগবে এমন গুজবে কান না দিয়ে আইন নিজের হাতে না নিতে ইতিমধ্যে পুলিশ সুপার কার্যালয় থেকে নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। ওই নির্দেশনার কপি জেলার সকল থানায় প্রেরণ করা হয়েছে, যা সংশ্লিষ্ট থানার অফিসার ইনচার্জগণ তাদের স্ব স্ব ফেসবুক পেজে পোস্ট দিয়েছেন।

পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির বিপিএম, পিপিএম-এর নির্দেশনায় দেখা যায়, পদ্মা সেতুতে মাথা লাগার বিষয়টি নিছক গুজব। এ নিয়ে বিভিন্নস্থানে প্রতিবন্ধী নারীসহ অনেকের উপর হামলা হচ্ছে। বিষয়গুলো নিয়ে আমরা কাজ করছি। যারা গুজব নিয়ে মানুষকে বিভ্রান্তিতে ফেলছেন তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হচ্ছে আর আমরা বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নজর রাখছি।

গণমাধ্যমকর্মী হিসেবে এই প্রতিনিধির কাছে গত কয়েকদিনে বেশ কয়েকটি ফোন আসে ছেলেধরার বিষয়টি জানার জন্যে। চাঁদপুর সদর উপজেলার মনিহার গ্রামের সালাম নামের একজন ঢাকায় কর্মস্থলে বসে শুনেছেন হাজীগঞ্জ থেকে কয়েক শিশুকে ধরে নিয়ে গেছে ছেলেধরা চক্র।

হাজীগঞ্জের বাকিলা এলাকায় গত কয়েক দিনে শিশু নিয়ে যাওয়ার গুজব ডালপালা অনেকখানি মেলেছে বলে স্থানীয়রা চাঁদপুর কণ্ঠকে জানিয়েছেন। তবে সচেতন অভিভাবকগণ বিষয়টি নিয়ে রয়েছেন একেবারে চিন্তামুক্ত।

এ বিষয়ে হাজীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আলমগীর হোসেন জানান, পদ্মা সেতুতে মাথা লাগবে আর ছেলে ধরা সক্রিয় আছে এমন বিষয়টি নিছক গুজব। গুজবে কান দিয়ে কেউ কাউকে মারধর করলে এর পিছনে জড়িতদের আইনের আওতায় আনা হবে।
ফিক আইন, ইভটিজিং ও সোস্যাল মিডিয়া সম্পর্কে ছাত্র-ছাত্রীদের সচেতনতায় মধুসূদন হাইস্কুলে জেলা পুলিশের মুক্ত আলোচনা


ট্রাফিক আইন, ইভটিজিং ও সোস্যাল মিডিয়া সম্পর্কে ছাত্র-ছাত্রীদের সচেতনতা করার লক্ষ্যে চাঁদপুর জেলা পুলিশের উদ্যোগে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মুক্ত আলোচনা অব্যাহত রয়েছে। গতকাল সভা করা হয় চাঁদপুর শহরের পুরাণবাজার মধুসূদন উচ্চ বিদ্যালয়ে। গতকাল ১১ জুলাই বেলা ১১টায় বিদ্যালয়ের পৃথক দুটি কক্ষে বিপুল সংখ্যক ছাত্র-ছাত্রী নিয়ে এ মুক্ত আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপরোক্ত বিষয়ের উপর শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর এবং এর থেকে প্রতিকার বিষয়ে তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. জাহেদ পারভেজ চৌধুরী।


শিক্ষার্থীদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, একটি দুষ্ট চক্র দেশকে অস্থিতিশীল করতে সোস্যাল মিডিয়ায় গুজবের আশ্রয় নিয়েছে। এদের ব্যাপারে সজাগ থাকতে হবে। এ ব্যাপারে পুলিশ প্রশাসন তৎপর রয়েছে। বিশেষ করে সোস্যাল মিডিয়ায় যে কোনো গুজব থেকে নিজেদের নিরাপদ রাখতে হবে। এ ধরনের কোনো পোস্টে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করা থেকে বিরত থাকবে হবে।
ইভটিজিং বিষয়ে তিনি বলেন, তোমাদের সাথে কেউ ইভটিজিং করলে তোমারা তা দলগতভাবে প্রতিবাদ করবে এবং সাথে সাথে ৯৯৯ নাম্বারে ফোন দিবে। ৫ মিনিটের মধ্যে পুলিশ এসে উপস্থিত হবে। তোমরা কখনোই নিজেদের অসহায় ভাববে না। তোমাদের পাশে অভিভাবক, শিক্ষক এবং প্রশাসন রয়েছে। পাশাপাশি তোমরা নিজেরাও কোনো প্রকার অপরাধে জড়াবে না।


তিনি আরও বলেন, ট্রাফিক আইন সম্পর্কে চালক ও যাত্রীর পাশাপাশি পথচারীদের সচেতন হতে হবে। আমাদের ট্রাফিক আইন মেনে চলতে হবে। ট্রাফিক আইন সম্পর্কে তোমাদেরও ধারণা থাকতে হবে। ট্রাফিক আইন ভঙ্গ করা যাবে না। তোমরা যদি ট্রাফিক আইন না জানো তবে চালকের ভুল ধরতে পারবে না, নিজেদের ভুলও দেখবে না।


অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ নাসিম উদ্দিন ও মধুসূদন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গনেশ চন্দ্র দাস। উপস্থিত ছিলেন পুরাণবাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মোহাম্মদ শহীদ হোসেন, এসআই জাহাঙ্গীর আলম, সহকারী প্রধান শিক্ষক গোলাম সরোয়ার, শিক্ষক গোপাল সাহা, দিলীপ দেবনাথ, ওয়াহিদুর রহমান লাবু, নাজনিন সুলতানা প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *