পশুর চ্যানেলে ডুবে যাওয়া কার্গো জাহাজটি ৪৮ ঘন্টায়ও উদ্ধার কাজ শুরু হয়নী

মোংলা প্রতিনিধিঃ

মোংলা বন্দরের পশুর চ্যানেলে শনিবার রাতে ডুবে যাওয়া কয়লাবোঝাই জাহাজ এমভি বিবি ১১৪৮ রোববার নাগাদও উদ্ধার কাজ শুরু হয়নি। যে কারণে কয়লা ও জাহাজের মধ্যে পলি পরে ধীরে ধীরে পানির নীচে তলিয়ে যাচ্ছে কয়লা বোঝাই এ কার্গো জাহাজটি। বানিজ্যিক জাহাজ ও ছোট বড় নৌযান চলাচল স্বাভাবিক রাখতে শুধু মাত্র একটি ভাসমান মার্কিন বয়া দিয়ে দূর্ঘটনাকবলীত স্থল চিহ্নিত করে রাখা হয়েছে। তবে এটি দ্রুত উত্তালন করা না হলে জাহাজটি সড়িয়ে গিয়ে বন্দরের মুল চ্যানেল ঝুকিতে পরার সম্ভাবনা রয়েছে। আর ঘটনাস্থল দেখভাল ও নজরদারি করছে জাহাজের নাবিক ও আমদানী কারকরের লোকজন।

মোংলা বন্দরের পশুর চ্যানেলে ডুবে যাওয়া জাহাজের ভেতরে থাকায় প্রায় ৭, ৫০ মেট্রিক টন কয়লা নদীর পানিতে মিশে যাচ্ছে। কয়লার পানি নদীতে ভেষে গিয়ে এতে সুন্দরবনের জলজ, বনজ ও প্রাণীজ সম্পদের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশংকা বিশেসজ্ঞদের। শনিবার রাতে পন্য ও জাহাজসহ প্রায় কয়েক কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি দেখিয়ে কার্গো জাহাজটির মাষ্টার ওসমান মোংলা থানায় সাধারন ডায়রী করেছে। নদী থেকে জাহাজটি তুলতে মালিক পক্ষেকে জরুরী চিঠি দিয়েছে বন্দর কর্তৃপক্ষ।

লাইটার শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি মইনুল হোসেন মিন্টু বলেন, ডুবন্ত কার্গো জাহাজটি উত্তোলন করা যাবে কিনা এ ব্যাপারে খোঁজ নিতে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন মালিক পক্ষ, লাইটার শ্রমিক ইউনিয়ন ও বন্দর কর্তৃপক্ষ প্রতিনিধিরা। তাদের দাবি জোয়ারের পানি আর নদীর ভরা গোনের স্রোত কমলে আগামী দু’এক দিনের মধ্যে কয়লা উত্তোলনের কাজ শুরু করা সম্ভব হবে।

এদিকে, কয়লা কেরিয়ার এজেন্সি’র মালিক কামাল হোসেন তালুকদার বলেন, ডুবন্ত কার্গো জাহাজটি উত্তলনের জন্য বিআইটিসি’র প্রতিনিধিকে বলা হয়েছে। এছাড়াও আগামী দিন মঙ্গলবার ভোর থেকে জাহাজে থাকা কয়লা অপসারনের কাজ শুরু করা হবে। অন্য একটি কার্গো জাহাজ ওই ডুবন্ত কার্গোটি পাশে রেখে মেশিনের মাধ্যমে প্রথমে কয়লা সরানো হবে এবং পরে উদ্ধারকারী নৌযান নিয়ে জাহাজটি ক্রেনের সাহায্যে টেনে তোলা হবে বলে জানায় কামাল হোসেন। তবে কয়লা অপসারন করতে প্রায় ৮ থেকে ১০ দিন সময় লাগবে বলেও জানায় তিনি।তবে কার্গোটি পশুর চ্যানেলের মুল চ্যানেলের বাহিরে ডুবেছে বলে নৌযান চলাচল ও মুল চ্যানেল নিরাপদ রয়েছে বলে জানিয়েছেন বন্দরের হারবার মাষ্টার কমান্ডার ফখরউদ্দিন।

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ মুসা বলেন, কয়লা বোঝাই ডুবন্ত কার্গো জাহাজটি উত্তলনের জন্য গতকালই মালিক পক্ষকে তলব করা হয়েছে। পশুর চ্যানেলের পাশে যেহেতু জাহাজটি ডুবেছে তাই চ্যানলের পাশ থেকে সরিয়ে নিতে কার্গো র্চাটার মালিককে চিঠির মাধ্যমে জানানো হয়েছে। এছাড়াও মালিক পক্ষ কার্গোটি উত্তলনে উদ্ধারকারী জাহাজ আনার জন্য চেষ্টা চালাচ্ছে এবং মঙ্গলবার থেকে কয়লা উঠানোর কাজ শুরু করার কথা রয়েছে বলেও জানায় বন্দর চেয়ারম্যান।

বন্দরের হাড়বাড়িয়ার ৭ নম্বর এ্যাংকোরেজ থাকা বিদেশী জাহাজ এম, ভি জসকো থেকে কয়লা বোঝাই করে যশোরের নওয়াপাড়ার উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে কার্গো জাহাজটি। ৭শ ৫০ মেঃ টন কয়লাবাহি কার্গো জাহাজ এমভি বিবি ১১৪৮ শনিবার রাত সাড়ে ১১ পশুর নদীর সিগনাল টাওয়ার এলাকায় ডুবো চরে আটকে তলা ফেঁটে ডুবে যায়। যা ৪৮ ঘন্টার পরও উদ্ধার কাজ শুরু করেনী কর্তৃপক্ষ।

সময় নিউজ২৪.কম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *