পাঁচবিবিতে মসজিদের পানি পারিবারিক কাজে ব্যবহারে বাঁধা দেওয়ায় মারপিটে বরেন্দ্র ড্রাইভার সেক্রেটারী সহ ৬ জন আহত

পাঁচবিবি (জয়পুরহাট) প্রতিনিধিঃ

জয়পুরহাটের পাঁচবিবির মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের রায়গ্রামে মসজিদের জন্য দেওয়া বরেন্দ্র সেচ প্রকল্পের পানি পারিবারিক কাজে ব্যবহারে বাঁধা দেওয়ায় মারপিটে বরেন্দ্র ড্রাইভার ও মসজিদের সেক্রেটারী সহ ৬ জন গুরুত্বর আহত হয়েছে। গতকাল ঘটনাটির সংবাদ পেয়ে সরেজমিনে গেলে মোসলেমর লোকজনের মারপিটে গুরুত্বর আহত হওয়া মসজিদের সেক্রেরেটারী ভোলা মন্ডলের পুত্র আইদুল মন্ডল আজিজুল (৪০) ও তার মা আছিয়া বিবি, এবং ওয়াক্তিয়া মসজিদের সভাপতি আলহাজ¦ আসাদ আলী মন্ডল। বরেন্দ্র সেচ পকল্পের অংশিদার ওবায়দুল ইসলাম মাস্টার সহ গ্রাম বাসী একযোগে সাংবাদিকদের জানান।

স্থানীয় মৃত পরশ তুল্লা মন্ডলের পুত্র মোসলেম উদ্দীন (৬৫) তার পুত্র কাজল (৩০), প্রিন্স (৪২), রিগান (২৮), রিমন (২৫),ছাব্বির (২০), স্ত্রী বেলী (৬০),কন্যা রিক্তা(৪০) ইতি (২৭) , মৃত জসিম উদ্দীনের পুত্র শাহিন (৪৮) ,শামীম (৩২) শামীমের স্ত্রী সুমি (২৫) সহ একটি সংঘবদ্ধ দল মসজিদের জন্য সরবরাহ করা বরেন্দ্র সেচ পকল্পের পানির ট্যাপ থেকে পারিবারিক কাজে পনি ব্যবহারে নিষেধকারী বরেন্দ্র ড্রাইভার একই গ্রামের নয়মদ্দিনের পুত্র ছায়ের উদ্দীন (৪২) এর উপর এলোপাথারী ভাবে মারপিট করতে থাকে । এসময় ছায়ের উদ্দীনের আত্মচিৎকারে মসজিদের পাশে আলুর বস্তা করতে থাকা মসজিদের সেক্রেটারী আইদুল মন্ডল আজিজুল এগিয়ে আসলে তাকেও রড দিয়ে এলোপাথারী মারপিট করতে থাকে।

আইদুল মন্ডল আজিজুল কে বাঁচাতে এগিয়ে আসলে পর্যায়ক্রমে তার স্ত্রী রোকছানা (৩৫) ও ছোট দুই ভাই ছফির আলম (৩০), আজাদুল (৩৫), বোন আবেদা (৪০) কেও মারপিট করে গুরুতর যখম করে । আহতদের আত্মচিৎকারে গ্রামবাসী এগিয়ে আসলে মোসলেমর লোকজন পলিয়ে যায়। পরে গ্রামবাসীরা আহতদের কে উদ্ধার করে জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করে। এরমধ্যে আইদুল মন্ডল আজিজুল ও তার স্ত্রী রোকছানার অবস্থার অবনতি হলে ডাক্তার তাদেরকে বগুড়া শহীদ জিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয় । গ্রাম বাসী আরো জানান, মোসলেমের লোকজনের মারপিটের সময় তাদের নিজেদের লাঠির আঘাতে তার কন্যা রিক্তা আহত হয় ।

ঘটনার বিষয়ে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা খাজা মিয়া বলেন, মোসলেম ও তার পুত্ররা দীর্ঘদিন ধরে প্রতিবেশিদের উপর অত্যাচার করে আসছে। প্রতি বছর গ্রামে দুই-একটি ঘটনা ঘটাবেই তারা। ইউপি সদস্য বাবুল হোসেন বলেন, মোসলেমের পরিবার রায়গ্রামের মধ্যে সবচেয়ে বেশি অসামাজিক পরিবার। এ বিষয়ে দুই পক্ষ থেকেই থানায় অভিযোগ দাখিল করেছে । থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ বিষয়ে থানার অফিসার্স ইনর্চাজ মুনসুর রহমান বলেন, দুইপক্ষ অভিযোগ করলেও তদন্ত করে প্রকৃত অপরাধীর বিরুদ্ধেই আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে ।

সময় নিউজ২৪.কম/এমএম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *