প্রত্যাশিত সূর্যোদয়ের অপেক্ষায়

২০২০ সাল। দুইটি সংখ্যা পালাক্রমে দুইবার বসে সালটি গঠিত হয়েছে।অতীব সুন্দর সংখ্যার একটি বছর। এই প্রত্যাশিত সুন্দর একটি সালের আগমনে বিশ্ববিদ্যালয়ে মাস্টার্স পড়ুয়া আজাদের মনে বেশ স্বপ্ন জেগেছে। নির্মল প্রাকৃতিক পরিবেশে বেড়ে উঠা ছেলেটা এখন ইট পাথরের ইমারতে গড়ে উঠা শহরে বসবাস করে। চোখে, মুখে মনে এক হিমালয় স্বপ্ন তার। নিন্মমধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলে তাই প্রতিটা দিন তার সংগ্রাম করে টিকে থাকতে হয় এই দালানে ঘেরা শহরটায়।
হ্যা, এতোক্ষণ যার কথা বলছিলাম সেই ছেলেটা আমি নিজেই। আমিই আজাদ। এক হিমালয় স্বপ্ন নিয়ে ২০১৯ সালে মাতৃস্নেহঘেরা জন্মস্থান ছেড়ে পাড়ি জমাই ঢাকায়। এখনো মাস্টার্স চলছে আমার। নিন্মমধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলে আমি। ঢাকায় থাকার মত খরচের ভার টা আমার পরিবার বহন করতে পারবেনা। দুশ্চিন্তায় প্রতিটা দিন রাত কাটে আমার। পড়াশোনা যতটুকু করি তার চেয়ে চিন্তা বেশি করি। কিছু একটা করা দরকার আমার। অনন্ত থাকা খাওয়ার খরচটা আমাকে জোগাড় করতেই হবে। বিড়ি জবসের একটা সার্কুলারে একটা কোচিং এর বিজ্ঞাপনে আবেদন করি। চাকরিটা হয়েও যায়।
চলছিলো অন্যকে পড়ানো এবং নিজে পড়ার মহরত। পরিকল্পনা ২০২০ সালেই একটা ভালো কিছু করে ফেলবো এভাবে চলতে চলতেই। কিন্তু স্বপ্নের রৌদ্রজ্জ্বল আকাশ যেনো ঘন কালো মেঘে ছেয়ে গেলো। বহু প্রত্যাশিত ২০২০ সাল এসে গেলো। কোচিং সেন্টারে চাকরি করি আর নিজের পড়াশোনা। হঠাত মার্চের ১৮ তারিখ বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ ছড়িয়ে পড়লো। সরকার বন্ধ ঘোষণা করলেন সকল প্রকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। আমার স্বপ্নের ওপর যেনো বাজ পড়লো। চোখে বিদিশার অন্ধকার দেখতে লাগলাম।
কোচিং সেন্টার থেকে নোটিশ দিলো পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে আমরা কিছু বলতে পারছিনা।একদিকে মাস্টার্সের পড়াশোনা, একদিকে চাকরির পড়াশোনা, নিজের খরচ, বাসা ভাড়া। আবার পরিবারের কিছু চাহিদা। সবমিলে হ্যালির ধুমকেতু যেনো মাথায় পড়লো। আমার বহু প্রত্যাশার বছরটা রুপ নিলো রাক্ষুসী রুপে। স্বপ্নগুলো ধীরে ডুবে যাচ্ছে একটা অনিশ্চিত ভবিষতের অন্ধকারে।
প্রত্যাশিত স্বপ্নের সূর্যটা আজ হেলে পড়ছে পশ্চিম আকাশে। স্বপ্ন ভাঙা নাকি মৃত্যুর চেয়েও ভয়ংকর। এ যেনো ভয়ংকর মৃত্যু যন্ত্রনা আমি ভোগ করছি। প্রতি মুহুর্তে যেনো স্বপ্ন ভাঙার ভাবনায় নরক যন্ত্রণা ভোগ করছি। জানিনা কবে এ মহামারী দূর হবে। কবে ফিরে পাবো সেই প্রত্যাশিত সূর্যোদয়।সামনে একটা অনিশ্চিত ভবিষত তবুও প্রত্যাশায় আজও দিন গুনছি…
লিখেছেনঃ নীল
সময়নিউজ২৪.কম / বি এম এম 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *