//pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js


বিদ্যুৎ সংকটেও ভরসা রাখুন আপনার রেফ্রিজারেটরে

সাম্প্রতিক সময়ে গোটা দেশ জুড়ে দেখা দিয়েছে বিদ্যুৎসংকট,যা আমাদের প্রত্যেকের দৈনন্দিন কার্যক্রমকে নানাভাবে ব্যাহত করছে।দীর্ঘক্ষণ বিদ্যুৎ না থাকার কারণে আমাদের ফ্রিজে থাকা খাবার পচে নষ্ট হয়ে যাওয়ার ঝুঁকিতে থাকে। তবে কিছু বিশেষ পদক্ষেপ গ্রহণ করে আপনি এই ঝুঁকি থেকে মুক্ত থাকতে পারেন।আসুন জেনে নেয়া যাক,বিদ্যুৎ সংকটের সময় আপনার ফ্রিজে থাকা খাবার কীভাবে ভালো রাখা যায়।রেফ্রিজারেটর ও ফ্রিজারে থাকা খাবার রাখার যে কিছু দিনের মধ্যেই নষ্ট হয়ে যায়, এমন নয়।

রেফ্রিজারেটরের খাবার ৪০ ডিগ্রি ফারেনহাইট বা তার কম তাপমাত্রায় ভাল থাকতে পারে, যেখানে শূন্য ডিগ্রি ফারেনহাইট বা তার নিচে ফ্রোজেন খাবারগুলো সংরক্ষণ করা হয়।রেফ্রিজারেটরের দরজা বারবার খোলা হলে এর ভেতরের তাপমাত্রা বেড়ে যেতে পারে। তাই বিদ্যুৎ সংকটের সময় চেষ্টা করতে হবে, রেফ্রিজারেটর ওফ্রিজারের দরজা যতো কম খোলা যায়।

যুক্তরাষ্ট্র ডিপার্টমেন্ট অব এগ্রিকালচার (ইউএসডিএ) মতে,বিদ্যুৎ সংকটের সময় একটি বন্ধ রেফ্রিজারেটর ৪ ঘণ্টা পর্যন্ত এর তাপমাত্রা ধরে রাখতে পারে।এছাড়া,খাবারে অর্ধেক পূর্ণ একটি ফ্রিজার ২৪ ঘণ্টা ও খাবারে পুরোপুরি পূর্ণ ফ্রিজার ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত এর তাপমাত্রা ধরে রাখতে পারে। তাই বিদ্যুৎ কতক্ষণ থাকছে না তার ওপর নির্ভর করে কেবলমাত্র ফ্রিজের দরজা বন্ধ রেখেই অনেক ক্ষেত্রে কিছু খাবার আপনি তাজা রাখতে পারবেন।

একটি রেফ্রিজারেটরের তুলনায় ফ্রিজার দীর্ঘক্ষণ পর্যন্ত তাপমাত্রা ধরে রাখতে পারে।যদি কোনো খাবারকে দীর্ঘসময় সঠিক তাপমাত্রায় সংরক্ষিত রাখতে হয়, তাহলে সেটা রেফ্রিজারেটর থেকে সরিয়েফ্রিজারে রাখার পরামর্শ দিয়ে থাকে ফুড এন্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ)। বাংলাদেশের আবহাওয়া যদিও যুক্তরাষ্ট্রের চেয়ে তুলনামূলকভাবে গরম, তারপরও এই পরামর্শ অনুসরণ করে যে খাবারগুলো আপনার এখনই প্রয়োজন হচ্ছে না, সেগুলো রেফ্রিজারেটর থেকে সরিয়ে ফ্রিজারে রাখার মাধ্যমে নষ্ট হয়ে যাওয়া থেকেরক্ষা করতে পারবেন। এভাবে বিদ্যুৎ ছাড়াই আপনি আপনার খাবারকে দীর্ঘ সময় ধরে ভালো রাখতে পারবেন।

বর্তমানে বিদ্যুৎ না থাকলেও তাপমাত্রা প্রয়োজনীয় মাত্রায় ধরে রাখার উদ্ভাবনী ফিচারসহ মডেলেরবিভিন্ন রেফ্রিজারেটর নিয়ে এসেছে বাজারের অনেক ব্র্যান্ড। এরমধ্যে ‘কুলপ্যাক’ ফিচার সহ রেফ্রিজারেটর নিয়ে এসেছে স্যামসাং, যা বিদ্যুৎবিভ্রাটে খাবার নষ্ট হয়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করবে। বিদ্যুৎ না থাকলে ফ্রিজার সেকশন থেকে প্রচুর পরিমাণ তাপ ভেতরে শোষণ করে নিতে পারে কুলপ্যাক ফিচার। ফলে বিদ্যুৎছাড়াও ফ্রিজের ভেতর খাবার দীর্ঘসময় ঠাণ্ডা থাকে। এই ফিচারের মাধ্যমে খাবার সংরক্ষিত থাকার সময় ১২ ঘণ্টা পর্যন্ত বেড়ে যায়।যেহেতু বিদ্যুৎ সংকট এখন আমাদের নিত্য সঙ্গী হয়ে গেছে, তাই রেফ্রিজারেটর যেন দীর্ঘসময় খাবার ভালোরাখতে পারে তা নিশ্চিত করাও আমাদের জন্য জরুরী। ওপরে উল্লেখিত নির্দেশনাগুলো অনুসরণ করে এবংস্যামসাং রেফ্রিজারেটরের কুলপ্যাকের মতো উদ্ভাবনী ফিচার সহ কোনো রেফ্রিজারেটর ব্যবহার করে এইবিদ্যুৎ সংকট কালে খাবার সংরক্ষণ নিয়ে নিশ্চিন্তে থাকতে পারবেন আপনিও। ১৬,০০০ টাকার ক্যাশব্যাক অফারসহ এখন আগ্রহী ক্রেতাদের জন্য স্যামসাংয়ের রেফ্রিজারেটরের মূল্য শুরু মাত্র ৩৮,৯০০ টাকা থেকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


//pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js
%d bloggers like this: