//pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js


মোংলায় মাটি কাটা নিয়ে দ্বন্দ্বে রক্তাক্ত জখম-৫,থানায় অভিযোগ

মোংলা প্রতিনিধি:

মোংলায় নিজ চিংড়ী ঘেরের জমিতে ড্রেজার দিয়ে জোর পুর্বক মাটি কেটে নেয়ার সময় বাধা দেয়ায় নারী সহ ৫জনকে মেরে রক্তাক্ত জখম করেছে একদল চিহ্ণিত সন্ত্রাসীরা। সোমবার দুপুরে উপজেলার সুন্দরবন ইউনিয়নের বাশতলা পাখিমারা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের রক্তাক্ত অবস্থায় স্থানীয়রা উদ্ধার করে মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এর মধ্যে ৩ জনের অবস্থা গুরুতর।তাদের খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার জন্য পরামর্শ দিয়েছে চিকিৎসক। এ ব্যাপারে থানায় লিখিত এজাহার দাখিল হয়েছে।

পুলিশ ও প্রত্যাক্ষদর্শী মহিলা ইউপি সদস্য জোছনা বেগম সহ অন্যান্যরা জানায়,মৃত বারেক মল্লিকের ছেলে ওহিদ মল্লিকের ৩ বিঘার একটি চিংড়ী ঘের থেকেবেশ কয়েকদিন ধরে জোর পুর্বক অবৈধ ড্রেজার দিয়ে মাটি কেটে নিচ্ছিল বাশতলা পাখিমারা এলাকার আওয়াল খান,রাহুল খান সহ একদল সন্ত্রাসীরা।বিষয়টি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান একরাম ইজারাদারের কাছে মৌখিক নালিশ করছে তিনি উভয় পক্ষকে পরিষদে আসার জন্য বলে এবং ওই জমিতে মাটি না কাটার জন্য নিশেধ করে। কিন্ত তর পরেও প্রতিপক্ষটি মাটি কাটা অব্যাহত রাখে বলে জানায়ভুক্তভোগী ওহিদ মল্লিক সহ তার পরিবারের সদস্যরা। সোমবার দুপুরে আবারও ড্রেজার দিয়ে মাটি কাটার সময় ওহিদ মল্লিক এতে বাধা দেয়। এক পর্যায় উভয় গ্রুপের মধ্যে বাক-বিতান্ডার দন্ধে জড়িয়ে পরে। এসময় ওহিদ মল্লিককে একা পেয়ে একই এলাকার মৃত লুৎফর খান’র ছেলে আওয়াল খাঁন ও রাহুল খাঁন, মইন উদ্দিন মল্লিক, মনিরুল, রবিউল খাঁন, রুবেল খাঁন, মুজাহিদ ফকির, জসিম খাঁন, ময়ন মল্লিক, মিজানুর মুসল্লি, সুমন খাঁন সহ ১০/১৫ জনের একদল সন্ত্রাসী তার
উপর হামলা চালায়। এসময় জীবন বাঁচাতে ওহিদ ডাক চিৎকার দিলে তার স্বজনরা এগিয়ে আসলে রুহুল আমিন (৩৫), ওহিদ মল্লিক (৫৪), বৃদ্ধা মর্জিনা বেগম (৬০) ও রোবেদা বেগম (৬২) সহ ৫জনকেবেদরক মেরে রক্তা জখম করে রাস্তার পাশে ফেলে রাখে সন্ত্রাসীরা বলে অভিযোগে উল্লেখ করে। পরে পার্শবর্তী লোকজন তাদের উদ্ধার করে মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এর মধ্যে ওহিদ মল্লিক,মর্জিনা বেগম ও রোবেদা বেগমের অবস্থা গুরুতর।পরিক্ষা-নিরিক্ষা শেষে তাদের খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দিয়েছে কর্তব্যরত চিকিৎসক।

মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মোঃশহিন জানায়, দুপুরের পরে সুন্দরবন ইউনিয়ন থেকে ৫/৬জন ব্যাক্তিকে আহত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়েছে। এদের মধ্যে ৩জনের ইনজুরি পরিমানটা একটু বেশী,তার পরেও তাদের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।তাদের অবজারে রাখা হয়েছে, অবস্থা বেগতিক হলে খুলনায় মেডিকেলে পাঠানো হবে।এদিকে প্রতিপক্ষ আওয়াল খান ও রাহুল খান বলেন, আমাদের ঘেরে মাটি কাটছিলাম কিন্ত ওহিদ মল্লিক সহ কয়েকজন এতে বাধা সৃস্টি করে। আমরা প্রতিবাদ করলে আমাদের লোকজনকে মারধর করেছে ওহিদ সহ তার লোকজন। তাই আমরা নয়,
এলাকাবাসী ওহিদ সহ তার লোকজনের উপর হামলা করেছে।

এব্যাপারে আহত ওহিদ মল্লিকের ভাই রুহুল মল্লিক ও মর্জিনা বেগমের ছেলে টুকু মোড়ল বাদি হয়ে সুন্দরবন ইউনিয়নের ২নং-ওয়ার্ড ইউপি সদস্য আহাদুলসহ ১৩ জনকে আসামী করে মোংলা থানায় পৃথক দুইটি এজাহাজর দাখিল করা হয়েছে।

মোংলা থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মাদ মনিরুল ইসলাম বলেন, সুন্দরবন ইউনিয়নের একটি জমির মাটি কাটা বিষয় নিয়ে মারামারীর ঘটনা ঘটেছে।দুইটি অভিযোগ পেয়েছি এবং বাশতলা পাখিমারা এলাকায় পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তদন্ত করে আসামীদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেয়া হবে বলে জানায় থানার এ কর্মকর্তা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


//pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js
%d bloggers like this: