মোংলায় রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে নকল বিড়ি বিক্রির অভিযোগ, লক্ষাধীক বিড়ি জব্ধ

মোংলা প্রতিনিধিঃ

মোংলায় রাজস্ব ফাঁকী দিয়ে নকল বিড়ি বিক্রির সময় প্রায় এক লক্ষ বিড়িসহ এক জনকে আটক করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৯টার দিকে পৌর শহর থেকে বিড়িসহ এ প্রতারককে আটক করা হয়। দুপুরে বিড়িসহ আটক ওই ব্যাক্তিকে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) নয়ন কুমার রাজ বংশির কাছে হাজির করা হয়। পরে ভ্রাম্যমান আদালত বসালে আটক ব্যাক্তি তার কম্পানীর বিড়ি তৈরী বৈধ বলে চ্যালেন্স করে। এসময় উপজেলা পরিষদের লোকজন নিয়ে তার চটেরহাট এলাকার গোডাউন অভিযান চালায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নয়ন কুমার রাজ বংশী। সেখান থেকেও প্রায় ৫০ হাজার নকল বিড়ি জব্ধ করা হয়।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) নয়ন কুমার রাজ বংশি জানান, সম্প্রতি একটি প্রতারক চক্র নকল বিড়ি (তামাকজাত দ্রব্য) তৈরী করে দেশের বিভিন্ন এলাকার বাজার গুলোতে বিক্রি করে আসছিল। ১৪ জানুয়ারী সকালে নকল বিড়িগুলো কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা থেকে গাড়ী যোগে আনছিল মোংলা পৌর শহরে। এ সময় সুন্দর বিড়ি নামের এ নকল বিড়িগুলোসহ আটক কুমুদ মন্ডলের ছেলে অমৃত মন্ডল সল্প মুল্যে বিক্রি করছে এমন খবর পেয়ে স্থানীয়দের সহায়তার মোংলা পৌর শহর এলাকা থেকে অমৃত মন্ডলকে আটক করা হয়। এ সময় তার কাছ থেকে প্রথমে ৫০ হাজার হাজার নকল তৈরী বিড়ি উদ্ধার করা হয়েছে। পরে চটেরহাট বাজার তার গোডাউন থেকেও ৫০ হাজার নকল বিড়ি উদ্ধার করা হয়। তবে ভ্রাম্যমান আদালতে সাজা না দিয়ে আটক ব্যাক্তিতে তার কাড়জপত্র যাচাইয়ের জন্য সুযোগ দেয়া হয়। তবে চলতি সপ্তাহের মধ্যে বৈধ কাগজ পত্র না দিলে ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে তাকে জরিমানা করা হবে বলে জানায় তিনি।

আকিজ বিড়ি কোম্পানীর খুলনা অঞ্চলের সহ-ব্যাবস্থাপক মোঃ নাসির উদ্দিন জানান, আমাদের কোম্পানী দীর্ঘদিন যাবত সরকারকে কোটি কোটি টাকা রাজস্ব দিয়ে ব্যাবসা পরিচালনা করে আসছে। কিন্ত কয়েকটি ভুয়া কোম্পানী সরকারের শুল্ক ফাঁিক দিয়ে নকল বিড়ি তৈরী করে তা বাজারজাত করছে। আমরা সরকার ও প্রশাসনের কাছে অনুরোধ করছি, যাতে এ সকল নকল বিড়িসহ বে-আইনীভাবে তামাকজাত দ্রব্য বাজারজাত করছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেয়ার দাবী জানাই।

সহকারী কমিশনার ভুমি আরো জানায়, একটি প্রত্যারক চক্র সরকারের রাজস্ব ফাকীঁ দিয়ে নকল বিড়ি তৈরী করে তা লোকজনের মাধ্যমে বাজারজাত করছে। এ কারনে দেশের যুব সমাজ সল্প মুল্যে তামাকজাত দ্রব্য পেয়ে তারা নেশায় আশক্ত হচ্ছে। তাই আটক অমৃত মন্ডলকে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে জরিমানা করার সময় তিনি তার বিড়ি বৈধভাবে তৈরী হয়েছে বলে জানায়। এসময় তার কাগজ পত্র বৈধ কিনা তা দেখানের জন্য সময় দেয়া হয়েছে এবং মুছলেখা রেখে তাকে ছেড়ে দেয়া হলেও জব্ধকৃত বিড়িগুলো আটক রাখা হয়েছে। বৈধ কাড়জ পত্র দেখাতে না পারলে তার বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেয়া হবে। নকল বিড়ি তৈরী ও বিক্রিকরা এসকল প্রত্যারকদের বিরুদ্ধে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উপজেলা সহকারী কমিশনার ভুমি।

সময় নিউজ২৪.কম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *