মৌসুমের প্রথম এল ক্লাসিকোতে আজ মুখোমুখি রিয়াল মাদ্রিদ-বার্সেলোনা

অনলাইন ডেস্কঃ

আজ মৌসুমের প্রথম এল ক্ল্যাসিকোতে মুখোমুখি রিয়াল মাদ্রিদ বার্সেলোনা। টানা দুই হারে নড়বড়ে আত্মবিশ্বাস নিয়েই ন্যু ক্যাম্পে নামছে জিদানের দল। অন্যদিকে তারুন্যে বলীয়ান বার্সেলোনাও নতুন উদ্যমে এগুচ্ছে। লিওনেল মেসিরও সম্ভাব্য শেষ মৌসুম বলে, এল ক্ল্যাসিকো আরও বেশি স্পটলাইটে রেখেছে এলএমটেনকে। রাত আটটায় শুরু হবে ম্যাচটি।ফুটবল তো বটেই যে কোন খেলার বিচারেও বিশ্বের সবচেয়ে বড় দ্বৈরথ রিয়াল মাদ্রিদ বার্সেলোনা।  এল ক্ল্যাসিকোর বিজ্ঞাপনকে চূড়ান্ত রূপ দিয়েছিলেন রোনালদো-মেসি।

রোনালদো স্পেন ছেড়েছেন। হয়তো এই মৌসুমের পর মেসিরও লা লিগা অধ্যায় শেষ। তাতেই বা কি? তারকা আসে তারকা যায়, ক্ষনিকের আফসোস জাগায়, তবুও ১১৮ বছরের ঐতিহ্য মেনে, এল ক্ল্যাসিকে আজও নিজ স্বকীয়তায় দাড়িয়ে। স্পটলাইট এখন তারুন্যে। যেখানে এগিয়ে বার্সেলোনা। ভিনিসিয়ুস, রদ্রিগোদের জবাব তুখোড় ফর্মে থাকা আনসু ফাতি।  ত্রিনকাও, সার্জিনো ডেস্ট, রিকি পুজ, পেদ্রি, আরাউহোতে, রোনাল্ড কোম্যান ক্লাবকে বদলে দেয়ার রসদ পেয়ে গেছেন এর মধ্যেই একঝাক তরুন তুর্কি।

রিয়াল মাদ্রিদের করুন দশা। লিগে কাদিজের সঙ্গে হার। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে আনকোড়া শাখতার লজ্জা। যদিও টানা দুই হারে বড় কারন রক্ষণ দেয়াল সার্জিও রামোসের না থাকা। অধিনায়ক সেরে উঠেছেন জিদান দাবি করলেও, পুরো ম্যাচ খেলার মত ফিটনেস নিয়ে আছে শঙ্কা।  দীর্ঘ ইনজুরিতে নেই এডেন হ্যাজর্ডও। গোল কিংবা খেলা তৈরী, আক্রমনে করিম বেনজেমাই সবচেয়ে বড় আস্থা জিদানের।

অস্বস্তি বার্সেলোনাতেও আছে। এল ক্ল্যাসিকোর ঠিক আগে মেসির দলবদল ইস্যুতে ক্লাবকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন  জেরার্ড পিকে। জর্ডি আলবা ইনজুরি থেকে সেরে উঠলেও শতভাগ ফিট নন। প্রশ্ন আন্তোয়ান গ্রিয়েজমানকে নিয়ে। এই ম্যাচেও কোম্যান তাকে একাদশে না রাখলে ন্যু ক্যাম্পে অন্ধকার গন্তব্যের দিকেই এগোবে  ফ্রেঞ্চ ফরোয়ার্ডের ক্যারিয়ার।

জিনেদিন জিদান বলেন, আমি সবসময় ক্লাবের পাশে আছি, তাই রিয়াল বোর্ডের সমর্থনও আমার প্রতি আছে।  ভালো দল সবসময় ঘুরে দাঁড়ায়। আমাদেরও ছন্দে পরিবর্তন প্রয়োজন। রোনাল্ড কোম্যান বলেন, রিয়ালের সময় খারাপ যাচ্ছে বলে এটা ভাবার কোন কারন নেই তারা ক্ল্যাসিকোতে পিছিয়ে। তারা বড় মঞ্চের বড় দল। জয়ের জন্য আমাদের সর্বশক্তি দিতে হবে।

এখন পর্যন্ত ২৪৪ এল ক্ল্যাসিকোতে মুখোমুখি হয়েছে দুদল। সমান ৯৬টি করে জয় রিয়াল মাদ্রিদ ও বার্সেলোনার। ড্র ৫২টিতে।
যদিও লা লিগায় এক জয় বেশি নিয়ে এগিয়ে লস ব্লাঙ্কোরা,, অন্যদিকে কাতালান জায়ান্টরা এগিয়ে  কোপা দেল রে হেড টু্ হেডে।

দুদলের সবশেষ লড়াইয়ে জিতেছিলো রিয়াল মাদ্রিদ। আর শেষ দুই ক্ল্যাসিকোতেই স্কোর করতে ব্যর্থ হয় বার্সেলোনা। এর আগে ১৯৫৭ থেকে ৫৮ এর মধ্যে টানা তিন ম্যাচে গোল করতে পারেনি কাতালান জায়ান্টরা। বার্সার ক্লাব ইতিহাসের সবচেয়ে সফল ফুটবলার। সবচেয়ে বেশি ২৮ এল ক্ল্যাসিকো খেলে ১৭ গোল আর্জেন্টাইন মহাতারকার। মেসির শেষের শুরু, এবারের এল ক্ল্যাসিকোকে থিমটাকেই আবেগে রাঙিয়ে দিয়েছে।

রিয়াল মাদ্রিদ স্কোয়াড: কর্তোয়া, লুনিন, লুইস লোপেজ, মিলিটাও, রামোস, ভারানে, নাচো, মার্সেলো, মেন্ডি, ক্রুস, মদ্রিচ, ক্যাসেমিরো, ভালভার্দে, ইস্কো, বেনজেমা, অ্যাসেনসিও, ভাস্কুয়েজ, জোভিচ, ভিনিসিয়াস এবং রদ্রিগো।

বার্সেলোনা স্কোয়াড: দেস্ত, পিকে, আরাউজো, রবার্তো, অ্যালেনা, গ্রিজম্যান, পিয়ানিচ, ব্রাথওয়েট, মেসি, দেম্বেলে, পুইগ, নেতো, কৌতিনহো, লংলে, পেদ্রি, ত্রিনকাও, আলবা, সার্জিও, ডি ইয়ং, ফাতি, জুনিয়র, পিনা এবং তেনাস।

সময় নিউজ২৪.কম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *