যশোরের চৌগাছায় গায়ে আগুন দেয়া সেই কলেজ ছাত্রীর অবশেষে মৃত্যু

যশোর প্রতিনিধিঃ

 

যশোরের চৌগাছায় গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টাকারী সেই কলেজছাত্রী জেসমিন খাতুন (১৭) অবশেষে চলে গেলেন না ফেরা দেশে। বৃহস্পতিবার ভোরের দিকে ঢাকার শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

জেসমিন উপজেলার পাশাপোল আমজামতলা মডেল কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী ও উজিরপুর গ্রামের হাসান আলীর মেয়ে।
মেয়েটির বাবা হাসান আলী জানান, ছয় মাস আগে একই গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে তিন সন্তানের জনক আবুল কাশেমের সঙ্গে জেসমিন খাতুন পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করে। দুই মাস আগে মেয়েটি বাড়ি চলে এলে তার ইচ্ছায় গ্রাম্য শালিসের মাধ্যমে স্বামীর কাছ থেকে ছাড়িয়ে নেওয়া হয়। কয়েকদিন আগে মেয়েটি আবারো কাশেমের কাছে চলে যেতে চায়।

জেসমিনের বাবা হাসান আলী কাশেমের কাছে না যাওয়ার জন্য চাপ দেন। এতে মনের ক্ষোভে জেসমিন মঙ্গলবার বিকেলে সকলের অগোচরে নিজের গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন লাগিয়ে আত্নহত্যার চেষ্ট করে।পরে পরিবারের সদস্যরা স্থানীয়দের সহায়তায় উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানকার চিকিৎসকরা জেসমিনকে ঢাকায় শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি হাসপাতালে রেফার করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার ভোরে তার মৃত্যু হয়।
সময় নিউজ২৪.কম/এমএম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *