রংপুর এমপি পদে মহানগর বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক সামসুজ্জামান সামুকে দেখতে চান নেতাকর্মীরা

প্রেস বিজ্ঞপ্তির॥
সম্প্রতি শূন্য হওয়া রংপুর-(৩) সদর ও সিটি কর্পোরেশন আসনে সংসদ সদস্য (এমপি) পদে ধানের শীষ প্রতীকে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপির রংপুর মহানগর কমিটির সাবেক সাধারন সম্পাদক, সাবেক জেলা ও কেন্দ্রীয় ছাত্রদল নেতা, বিগত আন্দোলন-সংগ্রামের নেতৃত্বদান কারী সাহসী যোদ্ধা, বিএনপির সর্বস্থরের নেতাকর্মীর সুখ-দুঃখের অতি আপনজন, রংপুরের বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের গ্রহণযোগ্য ব্যক্তিত্ব, জনপ্রিয় জননেতা সামসুজ্জামান সামুকে এমপি পদে দেখতে চান রংপুরের নেতাকর্মীসহ রংপুরবাসী। ইতিমধ্যেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন ভাবে বিএনপির নেতাকর্মীরা সামুর পক্ষে নগরীর ৩৩টি ওয়ার্ড ও রংপুর সদরের ৫টি ইউনিয়নে নানাভাবে প্রচারণা চালাচ্ছেন বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদলসহ তার ভক্ত-সমর্থকরা। বিএনপি নেতাকর্মীসহ রংপুরের বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষও চাইছেন সামু এমপি পদে নির্বাচন করুক। কারণ বিএনপি ছাড়াও বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের সাথে রয়েছে গভীর সখ্যতা। সর্বস্থরে রয়েছে গ্রহণযোগ্যতা। যা সর্বজন স্বীকৃত।
বিএনপির তৃণমুলের নেতাকর্মীরা জানান, সামসুজ্জামান সামু রংপুর বিএনপির প্রাণ। তিনি ১৯৭৯ সাল থেকে ছাত্রদলের মাধ্যমে জাতীয়তাবাদী রাজনীতিতে শুরু করে বিভিন্ন গুরুত্বপুণ পদে দায়িত্বপালন করেছেন। সরকারের রোষানলে পড়ে জেল খেটেছেন। অসংখ্যা মামলা মোকাবিলা করেছেন তিনি। শরীরে এখনো রয়েছে পুলিশের পিটুনির চিহ্ন। হয়েছেন অর্ধ শতাধিক ষড়যন্ত্র মুরক মামলার প্রধান আসামী। দীর্ঘদিন পরিবার পরিবার ও ব্যবসা-বাণিজ্য ছেড়ে ফেরারি আসামী হয়ে পলাতক জীবন যাপনও করেছেন।
এ ব্যাপারে বিএনপির নেতাকর্মী ও সমর্থকরা জানান, জীবনে শুরু থেকেই মহান স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের আর্দশের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। ছোটবেলা থেকেই এই রংপুরের মানুষের সঙ্গে মিশে বড় হয়েছেন। বিশেষ করে রংপুর সিটি কর্পোরেশন গঠনের পর মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়াও রংপুরসহ বিভিন্ন স্থানে উন্নয়ন ও সামাজিক কর্মকান্ডে জড়িত ছিলেন। সামু ১৯৭৯ সালের পর থেকে উত্তরবঙ্গের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কারমাইকেল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে ছাত্রদলের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হন। পরে তিনি ওই কলেজ ছাত্রদলের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। পরে রংপুর জেলা ছাত্রদলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ছাত্রদল কেন্দ্রীয় কমিটির রাজশাহী বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন ২ বার। জেলা বিএনপির সদস্য থেকে শুরু করে যুগ্ন আহবায়ক পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। সর্বশেষ মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। এজন্য যোগ্য, সুশিক্ষিক, মেধাবী পরিছন্ন রাজনীতিবীদ সামসুজ্জামান সামুকে আসন্ন রংপুর সদর-৩ আসনে এমপি পদে দেখতে চান রংপুর বিএনপির সর্বস্থরের নেতাকর্মী ও সমর্থক এবং রংপুরবাস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *