রাকসু নির্বাচনের আগে সহাবস্থান চায় রাবি ছাত্রদল

রাবি প্রতিনিধি:
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (রাকসু) নির্বাচনের সময় ঘনিয়ে আসছে। রাজনৈতিক ও অরাজনৈতিক সকল ছাত্রসংগঠনের সাথে সংলাপের শেষ পর্যায়ে চলে এসেছে রাকসু সংলাপ কমিটি। তবে সংলাপের গতি বেগ দেখে নির্বাচনে কালক্ষেপণের অপচেষ্টা চলছে বলে অভিযোগ তুলছে ছাত্রসংগঠনগুলো। এই কালক্ষেপণের যের ধরে দ্রুত নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাম সংগঠনগুলো এবং আন্দোলনে নামার হুশিয়ারী দিয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) শাখা ছাত্রলীগ।

এদিকে দ্রুত নির্বাচন এবং এই নির্বাচনের আগে ক্যাম্পাসে সকল রাজনৈতিক-অরাজনৈতিক ছাত্র সংগঠনগুলোর সহাবস্থান নিশ্চিত করনের দাবি জানিয়েছে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল রাবি শাখার সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান। বৃহস্পতিবার সকালে এসব দাবির কথা জানান তিনি।

কামরুল হাসান বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন প্রথম থেকেই ছাত্রসংগঠনগুলোকে রাকসু নির্বাচনের স্বপ্ন দেখিয়ে আসছে। রাকসু নির্বাচন দরকার এ বিষয়ে তাদের কোন মাথা ব্যাথা নেই। এতে করে নির্বাচনে কালক্ষেপণের বিষয়টি এখন স্পষ্ট। এ বছর রাকসু নির্বাচন হবে কি না এ বিষয়ে আমরা সন্দিহান। যেহেতু নির্বাচনের আনাগোনা চলছে সেহেতু আমাদের নির্বাচন কেন্দ্রীক প্রচার-প্রচারণা বিষয়টিও অত্যান্ত জরুরী। আমরা ক্যাম্পাসে দলীয় ব্যানারে প্রবেশ করতে পারছি না রাজনৈতিক নিষেধাজ্ঞার কারণে। এর আগে ছাত্রলীগ ও ছাত্রশিবির গন্ডগোলের পর বিশ্ববিদ্যালয়ে রাজনৈতিক নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিলো। এখন অবধি এই নিষেধাজ্ঞা জারি থাকার ফলে আমরা ক্যাম্পাসে আসতে পারছি না। অন্যদিকে ক্ষমতাসীন ছাত্র সংগঠন তাদের রাজনৈতিক কর্মকান্ড অবাধভাবে পালন করে আসছে। এতে করে বৈষম্যের আকার প্রকট হয়েছে। এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আমাদের ওপর এই রাজনৈতিক নিষেধাজ্ঞা জারির মাধ্যমে রাকসু নির্বাচনে কালক্ষেপণের পায়তারা চালাচ্ছে। আমরা প্রশাসনের কাছে অতি দ্রুত রাজনৈতিক নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়ে ক্যাম্পাসে স্বাধীনভাবে চলাচল করার দাবি জানাচ্ছি।’

এ সময় নির্বাচনে দল-মত নির্বিশেষে সকলের সমান অধিকার, সিসি ক্যামেরা নিশ্চিতকরে একাডেমিক ভবণে নির্বাচন এবং গণমাধ্যমের স্বাধীনতার মধ্যদিয়ে সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবি জানান তিনি।

রাকসু নির্বাচনের বর্তমান অবস্থা এবং ছাত্রসংগঠনগুলোর সহাবস্থানের বিষয়ে জানতে চাইলে রাকসু সংলাপের সভাপতি এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, ‘নির্বাচন দ্রুত করার লক্ষ্যে রাকসু সংলাপ কমিটি কাজ করে যাচ্ছে। নির্বাচন সুষ্ঠু ভাবে সম্পন্ন করতে আমরা সর্বোচ্চ সচেষ্ট থাকবো। আমরা চাই তারা ক্যাম্পাসে আসুক। অন্যান্য সকল ছাত্রসংগঠনের মত তারাও নির্বাচনে তৎপর হোক। এদিকে রাজনৈতিক নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে তিনি বলেন, রাকসু নির্বাচনে সহাবস্থান জরুরী, তাই রাজনৈতিক নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া জরুরী হয়ে পরেছে। আমি বিষয়টি উপাচার্যকে জানাব, তারপর সিন্ডিকেটে আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টি সমাধান করব।


সময়নিউজ২৪.কম/ এ এস আর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *