রাবি কর্মচারীদের চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে প্রতিদিন এক ঘন্টা অবস্থান

রাবি প্রতিনিধি:
চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে প্রতিদিন এক ঘন্টা করে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) মাস্টাররোল কর্মচারীরা।

গতকাল সোমবার থেকে শুরু করে এ কর্মসূচি ৭দিন চলবে বলে জানিয়েছে মাস্টারোল কর্মচারী ঐক্য পরিষদের মুখপাত্র মো. মাসুদুর রহমান।

এর আগে, একই দাবিতে রোববার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচর্যের বাসভবনের সামনে অবস্থান নেয় মাস্টারোল কর্মচারী ঐক্য পরিষদ। বিষয়টি সুরাহায় একইদিন সন্ধ্যায় বিশ^বিদ্যালয়ের ৪৯৭তম সিন্ডিকেটে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করলে আন্দোলন স্থগিত করেন তারা।

তিন সদস্যবিশিষ্ট কমিটিতে সদস্যরা হলেন, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা, প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান ও সহকারি প্রক্টর হুমায়ুন কবির। কমিটিকে আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে বিষয়টি সুরাহার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

কর্মচারীরা জানান, ২০০৬ থেকে এ পর্যন্ত প্রায় দেড় হাজার কর্মকর্তা ও কর্মচারীকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তাঁরা অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৯৯৬ থেকে অদ্যবধি মাস্টাররোলে নিয়োগপ্রাপ্ত হয়ে কাজ করে আসছেন।মাস্টাররোল কর্মচারীদের চাকরি স্থায়ীকরণ সংক্রান্ত সকল প্রক্রিয়া,সিন্ডিকেট কর্তৃক গঠিত কমিটির মাধ্যমে চূড়ান্ত সুপারিশমালা ও অর্থ অনুমোদিত হয়ে আছে। অথচ ইউজিসি ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা থাকা সত্ত্বেও মাস্টাররোল চাকরি স্থায়ী করা হয়নি।

শহীদ হবিবুর রহমান হলের নিম্নমান সহকারি মাসুদুর রহমান বলেন,আমরা পরীক্ষা, ভাইভাসহ সকল আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করেছি। এরপরেও আমাদের চাকরি স্থায়ী করা হচ্ছে না। আড়াই শতাধিক মাস্টাররোল কর্মচারিকে অস্থায়ীভাবে তাদের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে। অথচ ইউজিসির নির্দেশনায় বর্তমানদের অগ্রাধিকার দেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

আমাদের মধ্যে অনেকেই মনের আক্ষেপ নিয়ে মৃত্যুবরণ করেছে।যারা বেঁচে আছি তারাও অত্যন্ত মানবেতর জীবনযাপন করছি। সাতদিনের মধ্যে বিষয়টি সুরাহা না হওয়া পর্যন্ত আমরা এক ঘন্টা করে অবস্থান কর্মসূচি পালন করবো।

সিন্ডিকেট সদস্য হুমায়ুন কবির বলেন, মানবিক দিক বিবেচনায় নিয়ে মাস্টাররোল কর্মচারীদের বিষয়ে সিন্ডিকেট সভায় আলোচনা হয়েছে। যত দ্রুত সম্ভব তাঁদের চাকরি স্থায়ীকরণের বিষয়টি দেখা হবে।এর আগে গত বছরের ৭ নভেম্বর দৈনিক মজুরির ভিত্তিতে চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি দেন মাস্টাররোল কর্মচারীরা। উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান পরবর্তী সিন্ডিকেটে তাঁদের চাকরি স্থায়ীকরণের আশ্বাস দেন।

প্রসঙ্গত, ২০০৮ সালের ২০ ডিসেম্বর শিক্ষা উপদেষ্টা ড. হোসেন জিল্লুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ইউজিসির আলোচনা সভায় রাবির মাস্টাররোল কর্মচারিদের প্রসঙ্গে চারটি সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় এবং সে অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হয়।

সময় নিউজ২৪.কম/এমএম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *