রামপুর ইউনিয়নে ৫শ’ বছরের সুলতানী আমলের  গম্বুজ মসজিদটি গত বছর সংরক্ষণের জন্য উদ্ধার করা হয়

চাঁদপুর প্রতিনিধি :

চাঁদপুর সদর উপজেলার ৫নং রামপুর ইউনিয়নে ছোট সুন্দর গ্রামের সেই পুরনো মসজিদটি সংরক্ষণে প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের নোটিস বোর্ড স্থাপন করা হয়েছে। গতকাল ১১ সেপ্টেম্বর বুধবার বিকেল পাঁচটায় জেলা প্রশাসক মো. মাজেদুর রহমান খান প্রধান অতিথি হিসেবে প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের নোটিস বোর্ডটি আনুষ্ঠানিকভাবে স্থাপন করেন।

এ সময় জেলা প্রশাসক বলেন, জঙ্গলের ভেতর থাকা ৫শ’ বছরের পুরানো এই মসজিদটি সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের গেজেটভুক্ত করা হয়েছে। সেই আলোকে জায়গাটি অধিগ্রহণের কাজ চলছে। মসজিদটিকে পুরাকীর্তি হিসেবে সংরক্ষণের জন্যে একটি প্রকল্প তৈরি করা হয়েছে। আজ বিজ্ঞপ্তি সম্বলিত সাইন বোর্ড লাগানো হল। অচিরেই এটি সংরক্ষণ ও উন্নয়ন কাজ সংশ্লিষ্ট দপ্তর থেকে করা হবে।

 

জেলা প্রশাসক মসজিদটি সংরক্ষণের বিষয়ে বলেন, চাঁদপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি যথেষ্ট আগ্রহ প্রকাশ করায় খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে এটি পুরাকীর্তি হিসেবে সংরক্ষণের উদ্যোগ নেয় সরকার। সংরক্ষণ ও উন্নয়ন কাজ হলে এলাকাটি পর্যটন স্থানে পরিণত হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর চট্টগ্রাম বিভাগীয় আঞ্চলিক পরিচালক ড. মোঃ আতাউর রহমান, চাঁদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কানিজ ফাতেমা, প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরেরর ফিল্ড অফিসার মোঃ শহীন আলম, ময়নামতি জাদুঘরের কাস্টেডিয়ান মোঃ হাফিজুর রহমান, রামপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ আল মামুন পাটওয়ারী, ইউপি সচিব মোঃ রফিকুল হাসান খান, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোস্তফা কামাল (কামাল পাটওয়ারী), ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত হোসেন জাকির, ইউপি সদস্য মমিন উদ্দিন আহমেদসহ ইউপি সদস্য ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর চট্টগ্রাম বিভাগীয় আঞ্চলিক পরিচালক ড. মোঃ আতাউর রহমান জানান, ১৫ লাখ টাকার একটি প্রকল্প মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে। বরাদ্দ প্রাপ্তিতে এটি সংরক্ষণের যাবতীয় উন্নয়নসহ জায়গাটি সুন্দর করতে যা যা করা দরকার সেই কাজগুলো করা হবে। জনসাধারণকে অবগত করতে আজকে সাইন বোর্ড লাগানো হয়েছে।

সুলতানী আমলের এক গম্বুজ মসজিদটি গত বছর সংরক্ষণের জন্য উদ্ধার করা হয়। স্থানীয় প্রশাসন ও প্রত্নতত্ত্ব অধিদফতরের লোকজন এটি পরিদর্শন করেন। এর মধ্যে প্রথমেই আসেন প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের ঢাকা অঞ্চলের পরিচালক রাখী রায় ও তার প্রতিনিধি দল। পরে প্রত্নতাত্তি্বকরা যাচাই করে নিশ্চিত হয়েছেন, এটি প্রায় ৫শ’ বছর আগে নির্মিত মসজিদ। বাংলা ও ইংরেজিতে সেসব কথা লেখা আছে লাগানো সাইনবোর্ডে ।

সময় নিউজ২৪.কম/এমএম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *