লিওনেল মেসি ফর্মে থাকলে কী হয় !!

অনলাইন ডেস্কঃ

লিওনেল মেসি ফর্মে থাকলে কী হয়? সেটা তো নতুন করে বলার দরকার নেই। আগের ম্যাচে আথলেতিক বিলবাওয়ের বিপক্ষে জোড়া গোল করেছিলেন। এবার গ্রানাডার বিপক্ষেও গোলের ধারা অব্যাহত রেখেছেন আর্জেন্টাইন তারকা। শুধু কী তাই? মেসির সঙ্গে আতোঁয়া গ্রিজম্যানও বিধ্বংসী ভূমিকায়। দুই তারকা জুটির জোড়া গোলে উড়ে গেছে গ্রানাডা। বার্সেলোনা ৪-০ গোলে গ্রানাডাকে হারিয়ে নিজেদের জয়ের রথ ছুটিয়েই চলেছে।

হুয়েস্কা, অ্যাথলেটিক বিলবাওয়ের পর বার্সেলোনার জয় অব্যাহত গ্রানাডার বিপক্ষেও।রোনাল্ড কোম্যানের অধীনে টানা চতুর্থ অ্যাওয়ে ম্যাচে জয় পেলো বার্সেলোনা। আর এই জয়ে লা লিগায় পয়েন্ট তালিকায় তৃতীয় স্থানে উঠে এসেছে। ১৮ ম্যাচে ১০ জয়ে তাদের পয়েন্ট এখন ৩৪। আর এক ম্যাচ কম খেলে গ্রানাডা ৭ম হারে আগের ২৪ পয়েন্ট নিয়ে ৭ম স্থানে।

পুরো ম্যাচে বল পজেশনে এগিয়ে বার্সা। ৭২ ভাগ। চার গোলের তিনটি এসেছে প্রথমার্ধে। শুরুতে গ্রানাডা আক্রমণ গড়ে ভড়কে দিয়েছিল মেসি-ডেম্বেলেদের। কিন্তু গোলের সূচনা করতে পারেনি। বরং ১২ মিনিটে আতোঁয়া গ্রিজম্যান বার্সেলোনাকে এগিয়ে নেন। প্রতিপক্ষের সোলদাদোর পা হয়ে বক্সের ভিতরে ফাঁকায় বল পেয়ে যান গ্রিজম্যান। বাঁ পায়ে লক্ষ্যভেদ করতে ভুল হয়নি তার। তবে গোলটি অফসাইড মনে হলেও ভিএআর প্রযুক্তি দেখে অবশ্য রেফারি গোলের বাঁশিই বাজিয়েছেন।

পরের দুটি গোল মেসির। ৩৫ ও ৪২ মিনিটে। বার্সা অবশ্য দ্বিতীয় গোল পেয়েছে গ্রিজম্যানের এসিস্টে। বক্সের ভিতরে বল পেয়ে মেসি জোরালো বাঁকানো শটে লক্ষ্যভেদ করেন।

বিরতিতে যাওয়ার তিন মিনিট আগে ফ্রি-কিক থেকে গ্রানাডাকে আরও পিছিয়ে দেন মেসি। বক্সের প্রান্ত থেকে কিছুটা নিচু ফ্রি-কিকে দলের হয়ে তৃতীয় গোল করেন এই তারকা।

বিরতির পরও বার্সার আধিপত্যে একটুও তেজ কমেনি। যদিও এই অর্ধে একটি গোল এসেছে। ৬৩ মিনিটে চতুর্থ গোলটি আদায় করতে সমর্থ হয় বার্সা। উসমান ডেম্বেলের লব থেকে গ্রিজম্যান বক্সের ভিতরে বাঁ পা দিয়ে বল রিসিভ করে ডান পাঁয়ের নিখুঁত শটে কঠিন কোন থেকে গোল করে গ্রানাডাকে আরও পিছিয়ে দেন।

তিন মিনিট পর মেসিকে উঠিয়ে কোম্যান ব্রেথওয়েটকে মাঠে নামান।গ্যালারিতে বসে ম্যাচের বাকী অংশটকু দেখেছেন এই তারকা।

গ্রিজম্যান-আলবারা এরপর সুযোগ পেয়েও আর ব্যবধান বাড়াতে পারেনি। বরং ৭৭ মিনিটে ব্রেথওয়েটকে ফাউল করলে ভেলেজো লাল কার্ড দেখতে পান। গ্রানাডাকে বাকী সময়টুকু ১০ জন নিয়ে খেলতে হয়েছে।

তাতে করে অবশ্য বার্সা সেই সুবিধাটুকু সেভাবে নিতে পারেনি। মানে প্রতিপক্ষের জালে আর কোনও গোল জড়াতে পারেনি। তাতে কী? ৪ গোলে প্রতিপক্ষকে ধসিয়ে দেওয়া তো কম চাট্টিখানি কথা নয়!

সময় নিউজ২৪.কম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *