শতভাগ পাসসহ ধারাবাহিক সাফল্যে আপন আলোয় উজ্জ্বল পাকুন্দিয়ার আছিয়া বারি আদর্শ বিদ্যালয়


কিশোরগঞ্জ: রাজিবুল হক সিদ্দিকী, জেলা প্রতিনিধি কিশোরগঞ্জ।

 
প্রতিবছরের ন্যায় ২০১৯ সালেও এসএসসি পরিক্ষার ফলে সাফল্যের ধারা বজায় রেখেছে পাকুন্দিয়া উপজেলার মঠখোলায় অবস্থিত আছিয়া বারি আদর্শ বিদ্যালয়। এ বছর আছিয়া বারি আদর্শ বিদ্যালয় থেকে ৪৬ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরিক্ষায় অংশগ্রহন করে এবং ৪৬ জনই কৃতিত্বের সাথে পাস করে।পাসকৃতদের মধ্য জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৩ জন।
উল্লেখ্য বিদ্যালয়টি ২০০১ সালে যাত্রা শুরু করে। এই বিদ্যালয়টি ২০১৩ সালে প্রথম এসএসসি পরিক্ষায় অংশগ্রহন করে। বিদ্যালয়টি প্রথম বছরেই শতভাগ পাস সহ জিপিএ-৫ অর্জনের গৌরব অর্জন করেছিল। ধারাবাহিকভাবে ২০১৪, ২০১৫, ২০১৬, ২০১৭, ২০১৮ এবং ২০১৯ সালেও শতভাগ পাসের গৌরবউজ্জ্বল সাফল্য অর্জন করেছে বিদ্যালয়টি। পাসকৃতদের মধ্যে ২০১৩ সালে ১ জন, ২০১৪ সালে ১১ জন, ২০১৫ সালে ১৫ জন, ২০১৬ সালে ৭ জন, ২০১৭ সালে ২৫ জন, ২০১৮ সালে ১৯ জন এবং ২০১৯ সালে ১৩ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।
মঠখোলায় গ্রামীন পরিবেশে শহরের নান্দনিক ছোয়ায় গড়ে উঠা বিদ্যালয়টিতে রয়েছে আধুনিক কম্পিউটার ল্যাব, ছাত্রছাত্রীদের যাতায়াতের জন্য স্কুল বাস, ছাত্রদের জন্য ছাত্রাবাস, শতভাগ মাল্টিমিডিয়া ক্লাস রুম সহ সকল আধুনিক সুযোগ-সুবিধা। 

অন্যান্য পরীক্ষার ন্যায় এসএসসি পরীক্ষায়ও নিয়মিতভাবে ভালো ফলাফলের ধারা অব্যাহত রাখার ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এম. হুমায়ন কবির  বলেন “আমাদের শিক্ষক-শিক্ষিকা, ছাত্র-ছাত্রী, অভিভাবকগণ সারাবছর কঠোর পরিশ্রমের মধ্য দিয়ে পার করেন। অর্থাৎ সমন্বিত প্রচেষ্টার মাধ্যমে আমরা পুরো শিক্ষাবর্ষে একসাথে এগিয়ে চলি এবং একটি সেরা ফলাফল অর্জনে সক্ষম হই।
তিনি আরো বলেন,”পরীক্ষায় ভালো ফল লাভের পাশাপাশি একজন শিক্ষার্থী যেন ভালো মানুষ হয়ে জীবন গড়তে পারে সে ব্যাপারেও আছিয়া বারি আদর্শ বিদ্যালয় সর্বদা সচেষ্ট থাকে। এ জন্য নিয়মিত পড়াশুনার পাশাপাশি সকল প্রকার সহ-শিক্ষা কার্যক্রমে ছাত্র-ছাত্রীদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা হয়।”

আছিয়া বারি আদর্শ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ের সাথে সংশ্লিষ্ট বিডিএডুকেশন ও ইউনাইটেডট্রাস্ট সহ সকলের প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানিয়ে আগামীতে প্রতিটি পরীক্ষায় আরও ভালো ফলাফল করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।
সময়নিউজ২৪.কম/ এ এস আর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *