শান্ত নড়াইল অশান্ত খাশিয়াল গ্রাম এখন পুরুষ শূন্য!!

উজ্জ্বল রায় নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

 

নড়াইলের কালিয়া উপজেলার নড়াগাতি থানার খাশিয়াল গ্রামে মাদকসেবনে বাধা দেয়ায় দুই দল গ্রামবাসীর মধ্যে তিন দফায় সংঘর্ষ হয়েছে। উজ্জ্বল রায় নিজস্ব প্রতিনিধি জানান, এখন এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করায় এলাকায় পুলিশ মোতায়েন থাকলেও মানুষ নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে দিন কাটাচ্ছে।

এলাকাবাসী জানান, পুঠিমারি গ্রামের শাহাজান শেখের ছেলে সাইফুল শেখ (৩০), মাখন শেখের ছেলে হৃদয় শেখ (৩২), হায়দার শেখের ছেলে ছবির শেখ দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় মাদক ব্যবসাসহ সেবন করে আসছে। তারা খাশিয়াল গ্রামের হিমায়েত শিকদারের বাড়ির একটি ঘরে জোরপূর্বক প্রবেশ করে নেশা করতো।।গত মঙ্গলবার (৬ জানুয়ারি) দুপুরে তারা হিমায়েত শিকদারের ঘরে প্রবেশ করতে গেলে প্রতিবেশী পুঠিমারি গ্রামের মুনছুর শিকদারের ছেলে আতাউর শিকদার বাধা দেয়।

এ সময় মাদকসেবীরা ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে মারপিট করে। আতাউর পুলিশে খবর দিলে পুলিশ এলাকায় আসে। এর কিছুক্ষণ পর ওই মাদকসেবীরা সংঘবদ্ধ হয়ে আতাউরের ওপর হামলা করতে গেলে খাশিয়াল ইউপি সদস্য কাবির বিশ্বাস, ইনামুল শিকদার বাধা দেয়। মাদকসেবীরা পুলিশের সামনে দুজনকে বেধড়ক কুপিয়ে আহত করে এ ঘটনায় আতাউর শিকদার বাদী হয়ে থানায় মামলা করেন।

মামলায় ১০ জনকে আসামি করা হয়। পুলিশ ফেরদৌস নামে একজনকে আটক করে। আসামিরা বুধবার (১৫ জানুয়ারি) আদালতে হাজিরা দিয়ে জামিনে বেরিয়ে আসে। ইউনিয়নের বরফা খেয়াঘাট পার হয়ে বাড়ি ফেরেন। গ্রামের ৩০-৩৫ জন যুবক তাদের এগিয়ে নিতে আসেন। পথে খাশিয়াল গ্রামের কয়েকজনের সঙ্গে দেখা হলে জামিনপ্রাপ্তরা তাদের কটু কথা বলে। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে বচসার এক পর্যায়ে আবারও সংঘর্ষ বাধে। এতে খাশিয়াল গ্রামের জুয়েল শেখ,ঝন্টু বিশ্বাস এবং খায়ের শেখ, পুঠিমারি গ্রামের রাইসুল শেখ, চয়ন ফকির আহত হন।

আহতদের মধ্যে গুরুতর অবস্থায় জুয়েল শেখকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সরেজমিন দেখা গেছে খাশিয়াল গ্রামের দক্ষিণ পাড়ায় প্রায় পুরুষ শূন্য হয়ে পড়েছে। বাড়ির নারীরা ভীতসন্ত্রস্তের মধ্যে দিনযাপন করছেন। গ্রামের রিতা বেগম, সালমা বেগম ও হাসিনা খানম বলেন, আমরা ভয়ের মধ্যে আছি। রাতে মুখে কাপড় বেঁধে কারা যেন বাড়ির আশপাশে চলাচল করে।

দিনের বেলায় পুলিশ এসে ঘুরে যায়। রাতে থাকে না । জানতে চাইলে পুলিশ উপ-পরিদর্শক মাহাবুবুর রহমান বলেন, মাদকসেবীরা হিমায়েত শেখের বাড়িতে নেশা করে কিনা জানা নেই। তবে দুই পক্ষের মধ্যে আবারও মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

নড়াগাতি থানা পুলিশের ওসি মো.আলমগীর কবির বলেন, নেশা সংক্রান্ত ঘটনায় ওই এলাকায় মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এ ব্যাপারে ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকায় মামলার সকল আসামিরা আদালতে হাজির হয়ে জামিনে বেরিয়ে আসে। শুনেছি আসার পথে আবারও মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
সময় নিউজ২৪.কম/এমএম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *