সম্মেলন চলাকালে স্থানিয় বিএনপির দু গ্রুপের মাঝে সংঘর্ষে আহত-১০, আটক-৪

 
Your personal, business or professional blog website is just a click away!

শহিদুল ইসলাম (জি এম মিঠন) নওগাঁ জেলা প্রতিনিধিঃ
কেন্দ্রীয় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন নবী খান সোহেল বলেছেন, দূর্নীতির দায়ে যুবলীগের কয়েকজন চুনো পুটি ধরে লাভ নেই। আওয়ামীলীগের বড় বড় রুই কাতলা ধরতে হবে।

যুবলীগের চুনো পুটিদের কাছে যদি ক্যাসিনোর টাকা ১৫০ থেকে ২০০ কোটি টাকা থাকে তাহলে আওয়ামীলীগের বড় বড় নেতাদের বাসায় প্রতি রাতে বস্তায় ভরে যে টাকাগুলো যায় সেটার পরিমান তাহলে কি হবে। তাদেরকে ধরতে হবে। ছাত্রলীগের সভাপতি সাধারন সম্পাদক ৮৬ কোটি টাকা চাঁদা চেয়েছে। তাহলে তাদের কোন সংগঠন আছে। আওয়ামীলীগের কোন সংগঠন নাই। এটা এনিমেল কিংডংয়ে পরিনত হয়েছে। আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আওয়ামীলীগে ফ্রেস ব্লাড দিতে হবে। আমি বলব, এখন ফ্রেস ব্লাড দিয়ে কোন লাভ নেই।

আওয়ামীলীগে পচন ধরেছে। এখন দাফন করার সময় হয়েছে। তিনি আরো বলেন, আওয়ামীলীগের এমপিরা জনগনের ভোটে নির্বাচিত হয় নাই। তারা নির্বাচিত হয়েছে ভোট চুরি ডাকাতি করে। তারা ভোটারদের কাছে যায় নাই। তারা নির্বাচনের আগে ডিসি এসপি সাহেবদের কাছে যান। কারন তারাই ভোট চুরি ডাকাতি করে নির্বাচিত করেছেন। জনগনের ভোটে নির্বাচিত হয় নাই আওয়ামীলীগ।

(২৮ নভেম্বর) বৃহস্পতিবার দুপুরে নওগাঁর মহাদেবপুরে স্থানীয় কমিউনিটি সেন্টারে মহাদেবপুর উপজেলা বিএনপির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথি বক্তব্যে একথাগুলো বলেন কেন্দ্রীয় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন নবী খান সোহেল ।

তিনি আরও বলেন, বেগম খালেদা জিয়া তার স্বামীর অসমাপ্তে লড়াই সমাপ্ত করার জন্য মাঠে নেমেছেন। ৯ বছর ধরে আপোষহীন লড়াই করেছেন। আজ যারা বড় বড় কথা বলেন, সে সময় এরশাদের সাথে লংড্রাইভে গিয়েছিলেন। এখন তারা একসাথে সংসার করছে মহাজোটে। কিন্তু খালেদা জিয়া আপোষ করেন নাই লড়াই করেছেন এবং এদেশের শহীদদের রক্তের যে ফসল, যে বিজয়, সে বিজয় খালেদার জিয়ার নেতৃত্বে এদেশের মুক্তিকামী মানুষ অর্জন করেছিল খালেদা জিয়ার আপোষহীনতার কারনে। আর মাত্র তাকে ২ কোটি টাকার সাজানো মামলায় অন্যায়ভাবে কারাগারে আটকিয়ে রাখা হয়েছে।

অথচ একটি টাকাও তিনি হাত দিয়ে স্পর্শ করে নাই। আওয়ামীলীগের কাংগারো কোর্টের মাধ্যমে সাজানো রায় দিয়ে আমাদের মাকে কারাগারে আটকিয়ে রাখা হয়েছে। কারাগারে কোন চিকিৎসা দেয় নাই। তিনি এখন ভীষন অসুস্থ চলতে পারেন না। হুইল চেয়ারে কোন রকমে চলাফেরা করে। আমরা বহুদিন আদালতের দিকে তাকিয়ে ছিলাম। তাকে আজও জামিন দেয় নাই।

দেশ এখন চলছে মুজিব কোটে। সেই আদালত থেকে ইশারা না দিলে মুক্তি দিবে না। এখন জনতার আদালতে তাকে মুক্ত করে আনতে হবে। বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি ও তারেক রহমানকে দেশে ফিরে আনতে প্রয়োজনে শরীরের রক্ত দিতে প্রস্তুত থাকতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহবান জানান তিনি।
মহাদেবপুর উপজেলা বিএনপির আহবায়ক রিছায়াত হায়দার টগরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শাহীন শওকত, জেলা বিএনপির আহবায়ক মাষ্টার হাফিজুর রহমান, যুগ্ম আহবায়ক নাছির উদ্দীন আহমেদ ও এ্যাডঃ রফিকুল আলমসহ জেলা ও উপজেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দরা বক্তব্য রাখেন। সম্মেলন শেষে জেলা বিএনপির আহবায়ক রবিউল আলম বুলেটকে সভাপতি ও আব্দুল মতিন মন্ডলকে সাধারন সম্পাদক ঘোষনা দেন।

সম্মেলন শুরুর পূর্ব মহূর্তে বেলা ১২ টারদিকে স্থানিয় উপজেলা বিএনপি দুটি গ্রুপের মাঝে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে উভয় গ্রুপের কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছে। এসময় থানা পুলিশ পরিস্থিতি শান্ত করার পাশাপাশি বিগত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী ও জাতীয় সংসদের সাবেক ডেপুটি স্পিকার মরহুম আকতার হামিদ সিদ্দীকীর ছেলে পারভেজ আরেফিন সিদ্দিকী জনি সহ মোট ৪ জনকে আটক করে থানা হেফাজতে নিয়েছেন। বেশ কিছুদিন ধরেই মহাদেবপুর উপজেলায় স্থানিয় বিএনপির রাজনীতিতে, জাতীয় সংসদের সাবেক ডেপুটি স্পিকার মরহুম আকতার হামিদ সিদ্দীকীর ছেলে বিগত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী পারভেজ আরেফিন সিদ্দিকী জনি এবং রবিউল ইসলাম বুলেট গ্রুপের মধ্যে দন্দ চলছিলো।

এব্যাপারে মহাদেবপুর থানার ওসি নজরুল ইসলাম জুয়েল সম্মেলন স্থলে বিএনপির দু-গ্রুপের সংঘর্ষের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, সংঘর্ষের ঘটনা জানার সাথে সাথে সঙ্গীয় ফোর্স সহ ঘটনাস্থলে পৌছে প্রথমেই পরিস্থিতি শান্ত করার পাশাপাশি পারভেজ আরেফিন সিদ্দিকী জনি সহ মোট ৪ জনকে আটক করে থানা হেফাজতে নেয়া হয়েছে। তবে এসময় আটককৃত অপর ৩ জনের নাম বা পরিচয় তিনি জানাতে না পারলেও বর্তমান (সংবাদ লেখার) সময় পর্যন্ত পরিস্থিতি শান্ত আছে বলেও জানিয়েছেন ওসি।

Your personal, business or professional blog website is just a click away!

সময়নিউজ২৪.কম /বি এম এম 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *