হুন্ডি পাচারের অভিযোগে বেনাপোল ইমিগ্রেশনের তিন পুলিশ ক্লোজড

যশোর প্রতিনিধিঃ

যশোরের বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন পুলিশের নারী পুলিশসহ তিন কনস্টেবল ও ইমিগ্রেশনে এক কর্মচারিকে সাড়ে ১২ লাখ হুন্ডির টাকাসহ আটক করার পাঁচ ঘণ্টা পর তিন পুলিশকে ছেড়ে দিয়েছে ভারতীয় বিএসএফ। তবে ইমিগ্রেশনের কর্মচারীকে চালান দিয়েছে বিএসএফ।

সোমবার সকালে তাদের আটক করে ভারতীয় বিএসএফ। আটককৃতরা হলেন ইমিগ্রেশন কনস্টেবল আজম উদ্দিন, রমা ও তৃষা এবং কর্মচারি বেনাপোল বড়আঁচড়া গ্রামের রুহুল আমীন।

দিনভর আটক থাকার পর বিকালে ইমিগ্রেশনের ওসি আবুল বাসার বিএসএফ ক্যাম্পে গিয়ে নিজ জিম্মায় তাদের বাংলাদেশে ফেরত নিয়ে আসেন। পরে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে তাদের যশোর পুলিশ লাইনে ক্লোজড করা হয়।

স্থানীয় ও ওপারের সূত্র জানায়, বেনাপোল পোর্ট থানার বড়আঁচড়া গ্রামের রুহুল আমিন বেনাপোল ইমিগ্রেশনে টেন্ডেল হিসাবে কাজ করে এবং পাশাপাশি বৈদেশিক মুদ্রা পাচার করে থাকেন। তিনি তার কাজের ধারবাহিকতায় মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে মাঝে মধ্যে ইমিগ্রেশন পুলিশদের ব্যবহার করে থাকে। এ ছাড়া ইমিগ্রেশনের কিছু অসৎ কর্মচারীরাও এসব অসৎ কাজের সাথে জড়িত দীর্ঘদিন ধরে।

আজম নামে কনস্টেবলের নেতৃত্বে ভারতীয় গেটের ইমিগ্রেশন পুলিশ ও বিএসএফকে বলে কনস্টেবল রমা, তৃষা ও রুহুল ভারতে যান। এরপর ভারত থেকে ফেরার পথে বিএসএফ তাদের গোপন সংবাদের মাধ্যমে আটক করে তল্লাশি করে।

এরপর তাদের নিকট থেকে সাড়ে ১২ লাখ টাকা উদ্ধার করে বিএসএফ। পরে তাদের আটক করে বসিয়ে রাখে পেট্রাপোল বিএসএফ ক্যাম্পে।

বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন পুলিশের ওসি আবুল বাশার বলেন, আমরা এ ধরনের একটি সংবাদ পেয়ে ভারতের পেট্রাপোল সীমান্তের বিএসএফ ক্যাম্পে যাই। সেখানে গিয়ে দেখি বেনাপোলের বড়আঁচড়া গ্রামের রুহুল আমিনকে ২ লাখ টাকাসহ ভারতীয় বিএসএফ আটক করেছে। আমার পুলিশ কনস্টেবল তিন জন তার সাথে একসাথে ভারতে ফল কিনে আবার তার সাথে ফেরার পথে সন্দেহমূলকভাবে বিএসএফ তাদেরও আটক করে ক্যাম্পে নিয়ে যায়। পরে আমরা বিএসএফ এর সাথে কথা বলে ওই তিন কনস্টেবলকে দেশে ফেরত নিয়ে আসি।

বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবহিত করার পর ওই তিন কনস্টেবলকে বিকালে যশোর পুলিশ লাইনে ক্লোজ করা হয়েছে। আর রুহুল আমিনকে টাকা আনার অপরাধে ভারতীয় বিএসএফ তাকে থানায় সোপর্দ করেছে।
সময়নিউজ২৪.কম / বি এম এম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *