১২৯ মেট্রিক টন ধান টন তিন ইদুর কর্মকর্তার পেটের ভিতর: স্যার না বলায় সাংবাদিকদের অফিস থেকে বের করে দিলেন

উজ্জ্বল রায়, নিজস্ব প্রতিবেদক: 

অসৎ উদ্দেশ্য ও বিধি বর্হিভুত ভাবে প্রায় ৩ কোটি টাকা মুল্যের ১২৯ মেট্রিক টন ধান বীজ উপজেলার দত্তনগর কৃষি খামার থেকে চুরি করে পাচারের অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় দত্তনগর কৃষি খামারের ৩ উপ-পরিচালককে শাস্তিমুলক বদলীসহ সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে ও নড়াইলের সিমানত বার্তি অভয়নগর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাকে স্যার না বলায় ক্ষিপ্ত হয়ে ৪ সাংবাদিককে বের করে দেন। দত্তনগর কৃষি খামারের গোকুলনগর ইউনিটের বরখাস্তকৃত কর্মকর্তারা হলেন, উপ-পরিচালক বাবু তপন কুমার সাহা, করিঞ্চা খামারের উপ-পরিচালক বাবু ইন্দ্রজিৎ চন্দ্র শীল ও পাথিলা কৃষি খামারের উপ-পরিচালক আক্তারুজ্জামান তালুকদার সাহেব।

একই সাথে বীজ পক্রিয়াজাত কেন্দ্রের উপ-পরিচালক মোঃ আমিন উল্যাকেও বরখাস্ত করে চিঠি দেওয়া হয়েছে। বিএডিসির সচিব আব্দুল লতিফ মোল্লা সোমবার বিকালে এক চিঠিতে এই আদেশ দেন। বিএডিসির ওয়েবসাইট থেকে এ তথ্য জানা গেছে। আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক উজ্জ্বল রায় জানান, সচিব আব্দুল লতিফ সাক্ষরিত বরখাস্ত কর্মকর্তাদের কাছে পাঠানো পৃথক পৃথক (১২.০৬.০০০০.২০৩.২৭.২৮৩.১৯.৭২১/৭২২/৭২৩ ও ৭২৪) স্মারকের চিঠিতে বলা হয়েছে বিধি বহির্ভূতভাবে অসৎ উদ্দেশ্যে স্বীয় স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য উপজেলার গোকুল নগর, পাথিলা ও করিঞ্চা বীজ উৎপাদন খামারে ২০১৮/১৯ উৎপাদন বর্ষে কর্মসুচি বহির্ভুত অতিরিক্ত ১২৯.২২ মেট্রিক টন এসএল-৮এইচ হাইব্রীড জাতের ধান বীজ পক্রিয়াজাত কেন্দ্র যশোরে প্রেরণ করেছেন।

আপনি/আপনারা অতিরিক্ত বীজ উৎপাদনের পরিমান নিয়মানুযায়ী মজুদ ও কাল্টিভেশন রেজিষ্ট্রারে লিপিবদ্ধ করেন নি। এমন কি অতিরিক্ত কোন বীজ প্রেরণের কোন চালান বা তথ্য প্রমান খামারে রাখেন নি। আপনারা উক্ত ধান বীজ অসৎ উদ্দেশ্যে নিজেরা আত্মসাৎ করার জন্য সংরক্ষন ও উৎপাদন বিষয়ক প্রকৃত তথ্য গোপন করেছেন মর্মে প্রতিয়মান হয়। যেহেতু আপনাদের এহেন কার্যকলাম বিএডিসি কর্মচারী চাকরী প্রবিধানমালা ১৯৯০ এর ৩৯ (ক) (খ) (চ) দায়িত্ব পালনে অবহেলা, অসদাচারণ, চুরি, আত্মসাত, হতবিল তছরুপ ও প্রতারণার সামিল।

ফলে আপনি বা আপনাকে ১৯৯০ এর ৪৫ (১) বিধি মোতাবেক সংস্থার চাকরী থেকে সাময়িক বরখাস্ত করে অতিরিক্ত মহা ব্যবস্থাপক (খামার) বিএডিসি, ঢাকা দপ্তরে সংযুক্তি করা হলো। এই সময়ে সাময়িক বরখাস্তকালীন বিধি মোতাবেক খোরপোষ ভাতা প্রাপ্য হবেন এবং কর্তৃপক্ষের অনুমতি ব্যতিত কর্মস্থল ত্যাগ করতে পারেন না। উল্লেখ্য, উপজেলার দত্তনগর গোকুলনগর, পাথিলা ও করিঞ্চা বীজ উৎপাদন খামার থেকে কৌশলে প্রায় ৩ কোটি টাকার ১২৯.২২ মেট্রিক টন ধান চুরি করে বিক্রির জন্য যশোর বীজ বিক্রয় কেন্দ্রে পাঠানো হলে ধরা পড়ে যান ওই তিন উপ-পরিচালক।

বিষয়টি তদন্ত করতে এসে সত্যতা পান বিএডিসির তদন্ত কর্মকর্তারা। অভিযোগ উঠেছে, প্রতি বছর চাহিদা বা বরাদ্দপত্রের এ ভাবে কোটি কোটি টাকার ধান বীজ পাচার করা হয় বলে খামারের সাথে সংশ্লিষ্ট একটি সুত্র জানায়। এদিকে নড়াইলের সিমানত বার্তি অভয়নগর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাকে স্যার না বলায় ক্ষিপ্ত হয়ে ৪ সাংবাদিককে বের করে দিলেন অভয়নগর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তাকে স্যার না বলে ভাই বলায় ক্ষিপ্ত হয়ে লাি ত করে তার অফিস থেকে ৪ সাংবাদিককে বের করে দিয়েছেন। ওই কর্মকর্তা তখন ২ জন মহিলার সংগে খোশগল্প করছিলেন। গতকাল সোমবার সকালে উপজেলা কৃষি অফিসে এ ঘটনা ঘটে।

ওই কর্মকর্তার নাম আব্দুস সোবহান। এ ঘটনায় অভয়নগরে সাংবাদিকদের মাঝে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। সাংবাদিক আতিয়ার রহমান জানান, অভয়নগর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সহ অনেক কর্মকর্তা নিয়মিত অফিসে আসেন না। গতকাল রোববার সকাল ১০ টায় সময় ওই অফিসে যেয়ে কৃষি কর্মকর্তাকে না পেয়ে কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা আব্দুস সোবহানের অফিসে যেয়ে দেখি ২ জন মহিলাকে নিয়ে খোশগল্প করছেন। আমাকে দেখেই চমকে ওঠেন। আমি তাকে ভাই বলে কৃষি কর্মকর্তা কোথায় আছেন জানতে গেলে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে আমার দিকে তেড়ে আসেন। এবং ওই অফিসের পিওনকে ডাকাডাকি করে আমাকে বের করে দিতে বলেন।

এসময় পাশে থাকা সাংবাদিক রিপানুর ইসলাম এগিয়ে গেলে তাকেও লাি ত করে বের করে দেন। এ ঘটনার পর দৈনিক জনতার অভয়নগর প্রতিনিধি কামরুল ইসলাম ও দৈনিক খুলনা টাইমসের অভয়নগর প্রতিনিধি শেখ জাকারিয়া রহমান বিষয়টি জানতে ওই কর্মকর্তার নিকট যেয়ে ভাই বললে তাদেরকেও অফিস থেকে বের দেন এবং বলেন আমি একজন বিসিএস ক্যাডার আমার সাথে কিভাবে কথা বলতে হয় জানেন না? সাংবাদিক রিপানুর ইসলাম বলেন “ উপজেলা কৃষি অফিসের আব্দুস সোবহানের বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে তিনি প্রায়ই তার অফিসে মহিলাদের নিয়ে খোমগল্পে মেতে থাকেন।

গতকাল সোমবার আমিও সংবাদ সংগ্রহে গিয়ে ছিলাম। যেয়ে আতিয়ার ভাইয়ের ঘটনা জানতে গেলে আমার সাথেও খারাপ আচরণ করেন। এ ব্যাপরে উপজেলা অভয়নগর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আব্দুস সোবহানের মোবাইল (০১৭৯৯৪৮০২৪৩) ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজী হননি। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার বিষয়ে জানতে চাইলে কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর যশোরের উপ-পরিচালক মো: এমদাদ হোসেন শেখ বলেন “ অভয়নগর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা গোলাম সামদানী ৩ দিনের ছুটিতে রয়েছেন। আপনারা একটু মিমাংসা করে নেন।

সময় নিউজ২৪.কম/এমএম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *