১৩’শ কারখানার জন্য মাত্র ১৪ জন

আবু সুফিয়ান রাসেল।।
১ মে আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস । শিল্প, বাণিজ্য, কলকারখানার নানা বিষয়ে বিষয়ে কাজ করে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর। দীর্ঘদিন জনবল সংকটে ধুঁকছে কুমিল্লা আঞ্চলিক অফিস । কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর কুমিল্লা আঞ্চলিক অফিস চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, নোয়াখালী জেলার দায়িত্বে রয়েছে। এ অধিদপ্তরের সূত্র মতে,এসব অঞ্চলে অনুমোধিত কলকারখানার সংখ্যা প্রায় ১৩ শতাদিক। এ অফিসে কর্মরত আছেন মাত্র ১৪ জন।

এ অধিদপ্তরের ৩১টি পদের মধ্যে মাত্র ১৪টি পূরণকৃত পদ রয়েছে। শূণ্য পদের মধ্যে রয়েছে সহকারি মহাপরিদর্শক (স্বাস্থ ও সেফটি) ২টি, সহকারি মহাপরিদর্শক সাধারণ ১টি, শ্রম পরিদর্শ স্বাস্থ ১টি, শ্রম পরিদর্শক সেফটি ২টি, শ্রমপরিদর্শক সাধারণ ৫টি, কম্পিাউটার মুদ্রাক্ষরিক ১টি, গাড়ী চালক ১টি, দপ্তারি ৩টি, দারোয়ান ১টি ও ঝাড়–দার ১টি সহ মোট ১৮টি পদ শূণ্য রয়েছে।
একই অবস্থা আঞ্চলিক শ্রম দপ্তরে। এ দপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ মনিরুজ্জামান জানান, ১৩ টি পদের মধ্যে ৭টি শূণ্য। এ বিষয়ে অধিদপ্তরে একাদিক চিঠি প্রেরণ করা হয়েছে।

কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর আঞ্চলিক অফিস কুমিল্লা সহকারি মহাপরিদর্শক সৈয়দ নাজমুল রাশেদ বলেন, প্রতিটি জেলায় একটি করে অফিস প্রয়োজন। তাহলে কাজ আরো গতিময় হবে। এ অফিসে ১৮টি শূণ্য পদ, জনবল বৃদ্ধির বিষয়ে আবেদন করা হয়েছে। কয়েক হাজার প্রতিষ্ঠানের কাজে সল্প সংখ্যক জনবল নিয়ে নিয়মিত হিমশিম খেতে হয়। এবং কুমিল্লা অফিস থেকে পার্শ্ববর্তী জেলা সমূহের দূরত্ব বেশী হওয়ান কোন দূর্ঘটনার পর পৌঁছাতে অনেক সময় লাগে। শ্রমিকদের অভিযোগ নিয়ে এ কর্মকর্তা বলেন, শ্রমিকেদের অভিযোগের সংখ্যা খুবই কম, শতভাগ সমাধান করতে পেরেছি। ওয়েব সাইটের কাজ চলছে, যদি কাজ শেষ হয় তাহলে অনলাইনে অবেদন করা যাবে। এবং প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজনীয় সকল তথ্য সহজে পাওয়া যাবে।

সময়নিউজ২৪.কম/ এ এস আর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *